কমছে না পেঁয়াজের দাম, এখনো ৮০ টাকা কেজি

প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

পেঁয়াজের দাম নিয়ে সরকারের ঘোষণার সঙ্গে বাস্তব অবস্থার কোনো মিল পাওয়া যাচ্ছে না। খোলাবাজারে কম দামে যে সামান্য পরিসরে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে সেটি বাজারের ওপর কোনো প্রভাব ফেলতে পারছে না। গত মঙ্গলবার বাণিজ্য সচিব ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দাম কমে আসবে বলে ঘোষণা দিলেও গতকাল রোববারও পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে।

গতকাল বিভিন্ন পর্যায়ের ক্রেতা-বিক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাজার ও মানভেদে দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হয়েছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকায় এবং আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে। গত শুক্রবার বিভিন্ন বাজারে যে পেঁয়াজের কেজি ৫৫ টাকা ছিল, গতকাল এক লাফে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা হয়ে যায়। পাইকারি বাজারে দেশি পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ এবং আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ ৫৬ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। গত মঙ্গলবারের ধারাবাহিকতায় গতকালও স্বল্পপরিসরে রাজধানীর খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি অব্যাহত রাখে টিসিবি। রাজধানীর পাঁচটি স্পটে চলছে এ কার্যক্রম। এখানে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৪৫ টাকা দরে বিক্রি করা হয়েছে। একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ দুই কেজি পেঁয়াজ কিনতে পারছেন।

বাজারে পেঁয়াজের দাম হঠাৎ অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে দাম নিয়ন্ত্রণে করণীয় ঠিক করতে সরকারি বিভিন্ন দফতর, পেঁয়াজের আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে গত মঙ্গলবার বৈঠক করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বৈঠকের পর নতুন বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন এবং বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনের সদস্য আবু রায়হান আল বিরুনি ঘোষণা দেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পেঁয়াজের দাম কমে যাবে। সরকারের পক্ষ থেকে আসা এমন ঘোষণার পরেও রাজধানীর বাজারগুলোতে কমেনি পেঁয়াজের দাম।

এর আগে গত শুক্রবার ভারত সরকার সে দেশ থেকে পেঁয়াজ রফতানির ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন দর তিন গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। পেঁয়াজের সর্বনিম্ন রফতানিমূল্য টনপ্রতি ৮৫২ ডলার নির্ধারণ করে দেয় ভারতের কাঁচাপণ্য নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা ন্যাপিড। দেশটির বাজারে দাম বাড়ায় বাংলাদেশে পেঁয়াজের রফতানি নিরুৎসাহিত করতে ভারত এ কাজ করেছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা জানিয়েছেন, আগে টনপ্রতি পেঁয়াজ ২৫০ থেকে ৩০০ মার্কিন ডলার মূল্যে আমদানি হলেও বর্তমানে তা বাড়িয়ে ৮৫২ ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্ধিত মূল্য সংক্রান্ত নির্দেশনা এরই মধ্যে ভারতীয় রফতানিকারকদের পাশাপাশি হিলি কাস্টমসে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। গত শনিবার থেকেই নতুন দামে পেঁয়াজ আমদানি করতে হচ্ছে বলে জানান হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা।

রামপুরা বাজারের ক্রেতা সোলায়মান বলেন, ভারত পেঁয়াজের দাম এখন বাড়িয়েছে। কিন্তু বাজারে যে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে সে পেঁয়াজ তো আগেই আমদানি করা। তাহলে এই পেঁয়াজের দাম কেন বাড়বে? তা ছাড়া ভারত সরকার তো দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়ায়নি। অথচ দেশি পেঁয়াজের দামও এক লাফে দ্বিগুণ করে ফেলেছেন ব্যবসায়ীরা। এদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ দাবি করেন তিনি।

 

"