জাতির পিতাকে স্মরণ

জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানের প্রতি সারা দেশে বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি

প্রকাশ : ১৬ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিনম্র শ্রদ্ধা, ভালোবাসা আর গভীর শোকাবহ পরিবেশে জাতি স্মরণ করছে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। দিবসের শুরুতেই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে লাখো মানুষ সমবেত হয় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে। সেখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে তারা জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানান। জাতীয় শোক দিবসে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন। এছাড়া সারা দেশে সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় শোক র‌্যালি, আলোচনা অনুষ্ঠান ও দোয়া অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানকে স্মরণ করেছে।

গতকাল সকাল সাড়ে ৬টায় জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী ও প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। পরে মোহাম্মদ নাসিমের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ১৪ দলের নেতারা।

প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর ধানমন্ডি ৩২ নম্বর সবার শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য খুলে দেওয়া হয়। এ সময় মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা লীগ, যুব মহিলা লীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, তাঁতী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি হাজারো মানুষ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান।

বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাইদ খোকন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়। সকাল ৬টার মধ্যেই অগণিত মানুষের পদচারণায় ভরে উঠে ৩২ নম্বর সড়ক। হাতে কালো ব্যানার ও বুকে কালোব্যাজ ধারণ করে নারী-পুরুষ, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী, শিশু-কিশোরসহ সর্বস্তরের মানুষ। হালকা বৃষ্টি হলেও লাইনে দাঁড়িয়ে থাকে হাজারো মানুষ।

এছাড়াও সভাপতি হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জাসদ এবং রাশেদ খান মেননের নেতৃত্বে ওয়ার্কার্স পার্টি বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় প্রেস ক্লাব, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা শহীদ পরিবার, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি, যুব উন্নয়ন অধিদফতরের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এছাড়া সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব পরিষদ, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, বাংলা একাডেমি, গণগ্রন্থাগার অধিদফতর, জাতীয় জাদুঘর, নজরুল ইনস্টিটিউট, শিশু একাডেমি, খেলাঘর, বাংলাদেশ বেতার, জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী, জাতীয় মহিলা সংস্থা, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, জাতীয় কবিতা পরিষদ, জাতীয় গীতিকবি পরিষদ, শেখ রাসেল শিশু সংসদ, বাংলাদেশ ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংকের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

গোপালগঞ্জ : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় সশস্ত্র বাহিনী কর্তৃক অনার গার্ড প্রদান করা হয়। বিউগলে বেজে ওঠে করুণ সুর। অশ্রুসিক্ত নয়নে কিছু সময় দাঁড়িয়ে থাকেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন। প্রধানমন্ত্রী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের পক্ষে জাতির পিতার সমাধিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ দলে সিনিয়র নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর জন্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা : বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে গোপালগঞ্জ, টুঙ্গিপাড়া, কোটালীপাড়া, মুকসুদপুর ও কাশিয়ানী উপজেলার বিভিন্ন সমজিদে দোয়া ও মোনাজাত হয়েছে। গোপালগঞ্জ কেন্দ্রীয় সার্বজনীন কালীবাড়ী, লেকপাড় লোকনাথ মন্দিরসহ জেলার বিভিন্ন মন্দির ও গীর্জায় বঙ্গবন্ধুর আত্মার শান্তি কামনায় বিশেষ প্রার্থনা হয়।

শোকাবহ পরিবেশ : ১ আগস্ট থেকেই শোক দিবস উপলক্ষে মাদারীপুর জেলার কাঠালবাড়ী ইলিয়াছ আহম্মেদ ঘাট থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা হয়ে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া পর্যন্ত ১১৬ কিলোমিটার সড়কে কালো কাপড় দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে অসংখ্য তোরণ। টাঙানো হয়েছে নানা ব্যানার ও ফেস্টুন। জেলা শহর থেকে টুঙ্গিপাড়ায় পর্যন্ত পথে পথে দেখা গেছে কালো পতাকা। সৃষ্টি হয়েছে শোকাবহ পরিবেশ।

সমাধিসৌধে শোকার্ত মানুষের ঢল : প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া ত্যাগ করার পর বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে ঢল নামে শোকার্ত মানুষের। শোকের চিহ্ন কলোব্যাজ বুকে ধারণ করে পুষ্পস্তবক, ফুলের তোড়া ও ফুল নিয়ে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে আসেন। শতাব্দীর মহানায়কের সমাধিসৌধ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে তার জন্য দোয়া মোনাজাত করেন। ’৭৫ এর ১৫ আগস্টের কথা স্মরণ করে তারা বঙ্গবন্ধুর জন্য অশ্রুসিক্ত হন। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত আওয়ামী লীগ ও সহযোগী, শ্রমজীবী, পেশাজীবী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী শোকার্ত পরিবেশে বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া বিভিন্ন বয়সের মানুষ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে এসে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। দিনব্যাপী চলে শ্রদ্ধা নিবেদনের পালা। ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় সবার সেরা বাঙালি বঙ্গবন্ধুর টুঙ্গিপাড়ার সমাধিসৌধ।

গরিব মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণ : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে গোপালগঞ্জ জেলার ৬৮টি ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে, বিভিন্ন গ্রামে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল শেষে গরিব মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়। এছাড়া গোপালগঞ্জ, মুকসুদপুর, কোটালীপাড়া পৌর এলাকায় বিভন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, ব্যবসায়ী সমতির উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্য দোয়া মোনাজাত শেষে খাবার বিতরণ করা হয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শোক দিবস : গোপালগঞ্জ জেলার ৫ উপজেলার স্কুল, কলেজসহ সব শিক্ষাপ্রাতিষ্ঠানে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, চিত্রাঙ্কন, রচনা, প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, দোয়া, মিলাদ মাহফিলের মধ্যদিয়ে এ বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে দিবসটি পালন করা হয়।

খুলনা : সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সব সরকারি ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। সকালে জেলা প্রশাসনের শোক র‌্যালি নগরীর নিউমার্কেট থেকে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ বেতার খুলনার প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টে শাহাদত বরণকারী তার পরিবারের অন্য সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার, ডিআইজি, পুলিশ কমিশনার, জেলা প্রশাসক, মুক্তিযোদ্ধাসহ সব বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন।

গাইবান্ধা : গাইবান্ধা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে দিবসের সূচনায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শোক র?্যালি অনুষ্ঠিত হয়। র?্যালি পরবর্তী আলোচনা সভার প্রারম্ভে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্ট শাহাদাত বরণকারীদের স্মৃতির উদ্দেশে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

নরসিংদী : সকালে নরসিংদী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এক শোক র‌্যালি বের করা হয়। নরসিংদী সার্কিট হাউস থেকে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে গিয়ে শেষ হয় শোক র‌্যালি।

রংপুর : রংপুর ডিসির মোড়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জেলা ও মহানগরের নেতারা। এরপর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আসেন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানাতে। এর আগে নগরীর বিভিন্ন স্থানে শোক র?্যালি ও কালো ব্যাজ ধারণ করে পদযাত্রা করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এছাড়া রংপুর টাউন হলে দিনব্যাপী শোক দিবসের আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

পাবনা : দিবসের সকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, জেলা পরিষদের সামনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পাবিপ্রবি) ক্যাম্পাসে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্কুল কলেজে শোক দিবসে জাতির পিতাকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

জেলা ছাত্রলীগ শহরের আবদুল হামিদ সড়কে বের করে শোক র‌্যালি। পাবিপ্রবি ক্যাম্পাসে বের করা হয় শোক র‌্যালি। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আয়োজন করা হয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, হামদ-নাত প্রতিযোগিতা ও দোয়া মাহফিল।

মৌলভীবাজার : উপজেলা পরিষদে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে দিবসের সূচনা করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ ড. মো. আবদুস শহীদ এমপি। সকাল সাড়ে ১০টায় শ্রীমঙ্গল চৌমুহনা চত্বরে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগসহ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন যুবলীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

কুড়িগ্রাম : দিবসটি উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, শোক র‌্যালি ও শিশু কিশোরদের চিত্রাঙ্কনসহ দুস্থদের মাঝে নগদ টাকা ও খাবার বিতরণ করে জেলা আওয়ামী লীগ।

লক্ষ্মীপুর : জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে স্থানীয় মুক্তমঞ্চে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাঞ্জলি জানান সর্বস্তরের মানুষ। পরে শোক র‌্যালি বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল, পুলিশ সুপার ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক রাসেল মাহমুদ মান্না, কৃষিবিষয়ক সম্পাদক আবদুল মতলব, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম সালাহ্ উদ্দিন টিপু, লক্ষ্মীপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি কামাল উদ্দিন হাওলাদার ও সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম পাবেল প্রমুখ।

"