ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা কমছে

নারী-শিশুসহ চারজনের মৃত্যু ‘আতঙ্ক নয়, চাই সচেতনতা’

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে। ঢাকাতেও পরিস্থিতি আগের চেয়ে স্বাভাবিক হচ্ছে। ফেনী, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, খাগড়াছড়ি ও কক্সবাজার জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার খবর গত কয়েক দিনের চেয়ে কম। তবে কয়েকটি জেলায় মশাবাহিত এই রোগে আরো আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। এদিকে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা, বরিশাল ও ফরিদপুরে শিশুসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। ঢাকায় একজন ঢাকা মেডিকেলে, অন্যজন ইউনাইটেড হাসপাতালে মারা যান। এরা হলেন মেহরাব হাসান ও রিফাত। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মজিবর রহমান মোল্লা (৫৫) ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার লিপি আক্তার (৩০) নামে ওই নারীর মৃত্যু হয়। এই অবস্থায়, ডেঙ্গু রোগ নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে আওয়ামী লীগের ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও চিকিৎসা মনিটরিং সেল।

সেলের আহ্বায়ক মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, ডেঙ্গু রোগ শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বের প্রায় ১২৬টি দেশে বিস্তার লাভ করেছে। বিষয়টি এ মুহূর্তে আমাদের জাতীয় সমস্যা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। দেশের জনগণের কাছে আমাদের একটিই আবেদন, আপনারা আতঙ্কিত হবেন না। যদি জ্বরে আক্রান্ত হন তবে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হবেন এবং চিকিৎসকের ওপর আস্থা রাখবেন। বিচলিত না হয়ে দৃঢ়তার সঙ্গে কাজ করলেই এই দুর্যোগ থেকে আমরা পরিত্রাণ পাব।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য মতে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ডেঙ্গুতে মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩৪ হাজার ৬৬৬ জন। চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৫ হাজার ৭৮২ জন। বর্তমানে দেশের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা ৮ হাজার ৭৬৫ জন। এর মধ্যে রাজধানীর সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৫ হাজার ১৪০ জন। রাজধানীর বাইরে সারা দেশে ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৬২৫ জন।

নিজস্ব প্রতিবেদক ও জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো ডেস্ক রিপোর্টÑ

ঢাকা : ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, শিশু রিফাতকে রাত আটটায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত দেড়টার দিকে তার মৃত্যু হয়। রিফাতের বাবার নাম খোরশেদ। রিফাতদের গ্রামের বাড়ি জামালপুরে। রিফাতকে ডেঙ্গু রোগী হিসেবে ভর্তি করা হয়েছিল। এ নিয়ে এই হাসপাতালে ২২ জন ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

অন্যদিকে ইউনাইটেড হাসপাতালে গতকাল ভোরে আট বছরের শিশু মেহরাব হাসান মারা যায়। মেহরাব গত কয়েকদিন ধরে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত ছিল। এ নিয়ে সারা দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৩৩।

বরিশাল : গতকাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক মো. বাকির হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে ডেঙ্গু রোগী মজিবর রহমান মোল্লা মারা যান। তিনি বরগুনা রাইফেলস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ নিয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিন ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হলো। আর বরিশালে বিভাগে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মোট পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল এ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ২৭৫ ডেঙ্গু রোগী।

ফরিদপুর : ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার লিপি আক্তার (৩০) নামে ওই নারীর নারীর মৃত্যু হয়। লিপি গোপালগঞ্জ জেলার মুকছেদপুর উপজেলার মাহাবুব খলিফার স্ত্রী। হাসপাতালের পরিচালক ডা. কামুদা প্রসাদ সাহা জানান, গত ২ আগস্ট লিপি ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। সাতদিন চিকিৎধীন থাকার পর তার মৃত্যু হয়।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় জানায়, এ পর্যন্ত জেলায় ৫২৫ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে ৪১ জনকে। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ১৮৬ জন। বর্তমানে জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৮৬ জন। এছাড়া গতকাল ফরিদপুরের হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছে ৬০ জন রোগী।

মনোহরদী (নরসিংদী) : নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গত তিন দিনে ছয় ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে চারজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। একজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢামেক হাসপাতালে এবং অন্যজনকে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। গত তিন দিনে ছয়জন রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ায় জনমনে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। ডেঙ্গু আক্তান্তরা হলেন উপজেলার বড় মির্জাপর গ্রামের তারা মিয়ার ছেলে মারুফ (১৮), চন্দনবাড়ী ইউনিয়নের নলুয়া গ্রামের ফজর আলীর ছেলে শাকিল (২০), আসাদনগর গ্রামের আবদুর রউফেরে মেয়ে সোহানা (১৮), বড়চাপা ইউনিয়নের বীরমাইজদিয়া গ্রামের আইন উদ্দিনের ছেলে আবু বাকার (৩০), একই ইউনিয়নের আকরাম হোসেনের ছেলে আমিনুল ইসলাম (১৯), নয়াপাড়া গ্রামের রুকন মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২৫)।

"