ঈদের আগেই পেঁয়াজে অস্থিরতা

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

মাস খানেক বাকি কোরবানির ঈদের। এর মধ্যেই অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে পেঁয়াজের বাজার। হিলি স্থলবন্দরে ভারত থেকে আমদানি করা প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২০ থেকে ২২ টাকায় বিক্রি হলেও দেশের বৃহত্তম পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে বিক্রি হচ্ছে ২৮ থেকে ২৯ টাকায়। আর ঢাকায় বিক্রি হচ্ছে ৩২ থেকে ৩৫ টাকায়। অথচ ৫ দিন আগেও সারা দেশে ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছিল ২০ থেকে ২২ টাকা দরে। ব্যবসায়ীদের দাবি, ভারতে বুকিং রেট বেড়ে যাওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বৈরি আবহাওয়ার কারণে হঠাৎ করে হিলি স্থলবন্দরের আড়ৎগুলোতে পেঁয়াজের দাম ৬ থেকে ৭ টাকা কমে গেছে। প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২২ টাকায়। দু-একদিন আগে বন্দরের মোকামে প্রতি কেজি পেঁয়াজ প্রকারভেদে বিক্রি হয় ২৮ থেকে ২৯ টাকা দরে।

ব্যবসায়ীদের দাবি, বৈরি আবহাওয়ায় ক্রেতা সংকট এবং ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ খালাস না হওয়ায় পড়ে গেছে পেঁয়াজের দাম।

ক্রেতাদের অভিযোগ, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে কারসাজি করে পেঁয়াজের দাম বাড়ানো হচ্ছে। তবে পেঁয়াজ ব্যবসায়ী ও আমদানিকারকরা বলছেন, পেঁয়াজ রফতানিতে ভারত প্রণোদনা তুলে নিয়েছে। আর অতিরিক্ত গরম ও বৃষ্টিতে পেঁয়াজ নষ্ট হওয়ায় প্রভাব পড়ছে দামে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশে বছরে ২৪ লাখ টন পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে। কোরবানির ঈদে বাড়তি প্রায় দুই লাখ টনের চাহিদা তৈরি হয়। মোট চাহিদার প্রায় ১৭ লাখ টন দেশে উৎপাদিত হয়। বাকি সাত লাখ টন ভারত থেকে আমদানি করা হয়।

এনবিআরের তথ্য মতে, চলতি অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় ৯ লাখ টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। সে হিসেবে পেঁয়াজ ঘাটতি হওয়ার কথা নয়। কিন্তু পেঁয়াজের চাহিদা এবং সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলেও এক শ্রেণির ব্যবসায়ীর অনৈতিক তৎপরতায় অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। ফলে সাধারণ ক্রেতাদের অসহনীয় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, পেঁয়াজ আনা হয়েছে কিন্তু আনলোড করা যাচ্ছে না। ফলে পেঁয়াজ বিক্রিও হচ্ছে না। তাছাড়া ক্রেতারাও আসতে পারছেন না। ফলে দাম কমে যাচ্ছে।

এদিকে, দেশের অন্যতম পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে সপ্তাহ ব্যবধানে কেজিপ্রতি ৪ টাকা বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। গত সপ্তাহে ২৩-২৪ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হলেও বর্তমানে তা বেড়ে ২৮-২৯ টাকায় দাঁড়িয়েছে। ব্যবসায়ীদের দাবি, ভারতে বুকিং রেট বৃদ্ধি এবং দেশের নতুন অর্থবছরের বাজেটে ৫ শতাংশ অগ্রিম কর সংযোজন করায় বেড়ে গেছে পেঁয়াজের দাম।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারতীয় কৃষকদের রফতানি করার জন্য যে ভর্তুকি দেওয়া হতো তা বন্ধ করা হয়েছে। ফলে তারা রফতানি কমিয়ে দিয়েছে। এজন্য দাম বেড়ে গেছে।

হিলি স্থলবন্দরের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, চলতি সপ্তাহের ৪ কর্মদিবসে হিলি স্থলবন্দরে ভারত থেকে ১২৫ ট্রাকে ৩ হাজার ১২৫ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়।

 

"