প্রোটিয়াদের টার্গেট প্রথম জয় অভিন্ন লক্ষ্যে আফগানরা

প্রকাশ : ১৫ জুন ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

দুদলেরই টার্গেট অভিন্ন। জয়ের বিকল্প দেখছে না চোকার বাহিনী। বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরে আজ মাঠে নামছে জয় না পাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রতিপক্ষ ক্রিকেটে নতুন প্রাণের সঞ্চারণ ঘটানো আফগানিস্তানও সব ম্যাচ হেরে এখন এক কাতারে। কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টায়। তবে বিশ্বকাপের সেই নায়কের কথা বলতেই হচ্ছেÑ আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী এই ম্যাচেও শুরুটা বৃষ্টিবিঘিœত হতে পারে।

বিশ্বকাপে নবম স্থানে দক্ষিণ আফ্রিকা। একইভাবে ক্রিকেটের নতুন চমক আফগানিস্তানকেও এভাবে কেউ আশা করেনি। হতাশাজনক পারফরম্যান্সের কারণে তারা এখন দশম স্থানে। দক্ষিণ আফ্রিকাকে আসরের ফেভারিট হিসেবে বিবেচনা করেনি। তবে চার ম্যাচে তারা জয়হীন থাকবে এমনটাও কেউ আশা করেনি। ২০১৫ আসরের সেমিফাইনালিস্ট দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ম্যাচে ধরাশায়ী হয় স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে। দ্বিতীয় ম্যাচে লাল-সবুজের কাছে কুপোকাত, তৃতীয় ম্যাচে ভারতের কাছে বিপর্যস্ত। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাদের চতুর্থ ম্যাচটি পরিত্যক্ত হওয়ায় এক পয়েন্ট পেয়ে তালিকার নবম স্থানে তারা। এখনো কাগুজে হিসাবে সেমিফাইনালের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়নি তাদের। তবে তা বাস্তবে রূপ দিতে হলে আজ থেকেই জয়রথে চড়তে হবে তাদের। আর সে কারণেই আফগানি প্রতিরোধ এক ফুতকারে তাদের উড়িয়ে দিতে হবে আজ।

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা পারছেন না। হাশিম আমলা থেকে শুরু করে অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস, কুইন্টন ডি কক ও আশলাসহ দলের ব্যাটিং বিভাগের দায়িত্বশীল ব্যাটাররা যেন ছন্দই খুঁজে পাচ্ছেন না। আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে অন্তত তারা নিজেদের প্রমাণ করতে চাইবেন।

অন্যদিকে টানা তিন ম্যাচে হেরে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে আফগানিস্তান। ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদকে দেশে পাঠিয়ে দেওয়ায় তাদের ব্যাটিং লাইন দুর্বল হয়ে পড়েছে। বোলিংয়ের দিক থেকে মোটামুটি এগিয়ে থাকলেও তাদের সমস্যা রয়েছে ব্যাটিং লাইন আপে। যেহেতু তারা সব কিছু পেছনে ফেলে ঘুরে দাঁড়াতে চাইবে। তবে কাগিসো রাবাদা ও ইমরান তাহিরের সমন্বয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বোলিং মোকাবিলা করাটা তাদের জন্য বেশ কঠিনই হবে।

আলোচনা-সমালোচনায় মিশে আছে দুই দলই। উভয় দলই অভ্যন্তরীণ সমস্যায় ভুগছে। শাহজাদকে দেশে ফেরত পাঠানো নিয়ে আফগান দলে সৃষ্টি হয়েছে বিতর্ক। পক্ষান্তরে এবি ডি ভিলিয়ার্স অবসর ভেঙে বিশ্বকাপ খেলার আগ্রহ প্রকাশ করলেও ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা তাতে সাড়া দেয়নি। প্রশ্ন উঠছে এ ব্যাপারেও। ডি ভিলিয়ার্সের বদলি রাসি ভ্যান ডার ডুসেনও পারেন না মিডল অর্ডারে ভালো করতে।

আফগান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব যে কোনো মূল্যে এ ম্যাচে জয় খরা কাটাতে চান। তিনি বলেছেন, আমরা ভালো খেললেও একটা নতুন দল, অভিজ্ঞতা কম। তাই অনেক গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে আমরা চাপ সামলাতে পারিনি। আমরা দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয় তুলে নিতে শতভাগ চেষ্টা করব। আফগানি প্রধান অস্ত্র স্পিনার রশিদ খানের ভেলকিতে দক্ষিণ আফ্রিকা একাকার হয়ে গেলে বিস্ময়ের কিছু থাকবে না।

 

"