সংসদ সচিবালয়

সার্বক্ষণিক গাড়ির সুবিধা চান উপসচিবরা

প্রকাশ : ১৭ মে ২০১৯, ০০:০০

গাজী শাহনেওয়াজ

জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের উপসচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তারা সব সময় গাড়ির সুবিধা পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। আসন্ন জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কমিশন সভার কার্যপত্র তৈরির আগে এ-সংক্রান্ত সুযোগ-সুবিধা নথিভুক্ত করতে বিশেষ তৎপরতা চালাচ্ছেন তারা। প্রশাসন সার্ভিসের উপসচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তারা ঋণ সুবিধাসহ সার্বক্ষণিক গাড়ির সুবিধা পেয়ে আসছেন। খবর সংসদ সচিবালয় সূত্রের। জানতে চাইলে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া এ প্রসঙ্গে বলেন, সার্বভৌম সংসদের মর্যাদা কোথায় তা ব্যাখা করার প্রয়োজন নেই। কারণ রাষ্ট্রের কয়েকটি স্পর্শকাতর অঙ্গের মধ্যে এটিও অন্যতম একটি। তবে এখানের সব কিছু নির্দিষ্ট বাজেটের মধ্যে পরিচালিত হয়। সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা এবং প্রশাসন সার্ভিসের সমমর্যাদার কর্মকর্তাতে কোনো তফাত নেই। কিন্তু রাষ্ট্রের অন্যান্য বিভাগের কর্মকর্তারা যে সুবিধা পাচ্ছেন, এখানের কর্মকর্তাদের একই সুবিধাপ্রাপ্তির দাবিটি যৌক্তিক। তবে সব কিছুর মূলে বাজেট। এই কাজটি সম্পন্ন করতে হলে মোটা অঙ্কের অর্থ এবারের সংসদ-বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করে প্রস্তাব কমিশন সভায় অনুমোদন করাতে হবে। কমিশন সভায় প্রধানমন্ত্রী তাদের দেওয়া প্রস্তাবটি বিবেচনা করলে সব সমস্যার সমাধান হবে।

জাতীয় সংসদের সিনিয়র ৎসচিব ড. জাফর আহমেদ খান বলেন, সচিবালয়ে কর্মরত উপসচিবদের সার্বক্ষণিক গাড়ির সুবিধার ব্যবস্থা করতে এ-সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা সংসদ কমিশন সভার কার্যপত্রের এজেন্ডাভুক্ত রাখতে সংশ্লিষ্ট শাখাকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় গত বছরের জুলাইয়ে প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম এবং গাড়িসেবা নগদায়ন সংশোধিত নীতিমালা-২০১৮ জারি করা হয়। এর আগেই সরকারের যুগ্ম সচিব থেকে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সুবিধা পেয়ে আসছেন।

জানা গেছে, পরবর্তী সংসদ সচিবালয়ের কমিশন সভায় আসন্ন বাজেটে ‘সংসদ সচিবালয়ের’ জন্য বরাদ্দ বাজেটে এ-সংক্রান্ত প্রস্তাবটি নথিভুক্ত করে অন্যান্য প্রস্তাবের সঙ্গে সভায় তুলে ধরা হবে। সংসদ সচিবালয়ে ২২ জন নিজস্ব উপসচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তা রয়েছেন; যাদের মধ্যে কয়েকজন চাকরি থেকে অবসরে যাওয়ার আগে যুগ্ম সচিব হতে পারেন।

এসব উপসচিব বা সমমর্যাদার কর্মকর্তাদের অনুকূলে গাড়ি কেনার জন্য সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম বাবদ আসন্ন ২০১৯-২০ অর্থবছরে জনপ্রতি ৩০ লাখ টাকা বিবেচনায় অতিরিক্ত ৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা (এককালীন) এবং গাড়িসেবা নগদায়ন বাবদ জনপ্রতি মাসিক ৫০ হাজার টাকা হারে বছরে ১ কোটি ৩২ লাখ টাকা আসন্ন বাজেটে বরাদ্দ রাখতে হবে।

সংসদ সচিবালয়ের কয়েকজন উপসচিব নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, প্রশাসন সার্ভিসের যেসব কর্মকর্তা ডেপুটি কমিশনারের মর্যাদাপ্রাপ্ত হয়ে সরকারি সুবিধা ভোগ করছেন। অথচ সংসদের যারা এ পদমর্যাদার কর্মকর্তা রয়েছেন তাদের বেতন সুবিধা ও বেতন কাঠামোতে কোনো পরিবর্তন নেই। তবে গাড়িসহ অন্যান্য সুবিধা থেকে কেন বঞ্চিত হবেন! আশা করছি, আসন্ন সংসদ কমিশন সভায় প্রধানমন্ত্রী মানবিক বিবেচনায় বিষয়টি উপেক্ষা করবেন না। কারণ তিনি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে মাদার অব হিউম্যানিটির স্বীকৃতিতে ভূষিত হয়েছেন, যোগ করেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

 

"