সুপেয় পানি নিশ্চিতকরণ

ওয়াসাকে উত্তর ও দক্ষিণ দুই ভাগ করার সুপারিশ

প্রকাশ : ১৭ মে ২০১৯, ০০:০০

সংসদ প্রতিবেদক

ঢাকা ওয়াসার এমডি তাকসিন এ খান ‘অনুমতি হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির’ সভায় অনুপস্থিত থাকায় তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছে কমিটির বেশির ভাগ সদস্য। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে এমডির অনুপস্থিতির কারণ সংক্রান্ত বিষয়ে কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে। সচিবের কাছে কমিটির পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ওনাকে (এমডি) পত্রের মাধ্যমে জানানো হয়। একই সঙ্গে, টেলিফোনে বিষয়টি অবহিত করা হয়। পরে কমিটির সদস্যরা ক্ষোভ জানিয়ে পরবর্তী এ সংক্রান্ত বৈঠকে ওয়াসার এমডির উপস্থিতি অবশ্যই নিশ্চিত করার তাগিদ দিয়েছেন। একই সঙ্গে ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মতো ঢাকা ওয়াসাকে দিখন্ডিত করে নাগরিক সেবা বৃদ্ধি ও সুপেয় পানি নিশ্চিত করার সুপারিশ জানানো হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত কমিটির দ্বিতীয় বৈঠক কমিটির সভাপতি মো. আবদুস শহীদের সভাপতিত্বে এসব ক্ষোভ ও অসন্তোষ জানানো হয়। সভায় কমিটির সভাপতি ছাড়াও কমিটির সদস্য নুর-ই-আলম চৌধুরী, শেখ ফজলে নূর তাপস, আহসান আদেলুর রহমান এবং ওয়াসিকা আয়েশা খান উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী,বিভিন্ন প্রকল্পের প্রধানসহ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

সভা সূত্রে জানা যায়, রাজধানীর ওয়াসার পানিতে নানা ধরনের ক্ষতিকর জিনিস পাওয়া যাচ্ছে। এমনকি, পানির রং শরবতের আকার ধারণ করেছে। এ নিয়ে সম্প্রতি এক নাগরিক ধারণ করা পানি নিয়ে ওয়াসার এমডির কাছে যান এবং ওই পানি তাকে পান করানোর চেষ্টা করেন। এ নিয়ে দেশজুড়ে হইচই পড়ে যায়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে অনুমতি হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি ওয়াসার সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে অবহিত হওয়ার জন্য এমডিতে বৈঠকে উপস্থিত দেখতে চেয়েছিলেন। তার উপস্থিতিতে কমিটি চেয়েছিলেন প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে অবহিত হতে। কিন্তু এমডির অনুপস্থিতি কমিটির সদস্যদের ক্ষুব্ধ করেছে। কমিটির সভাপতি আবদুস শহীদ, নুর-ই-আলম চৌধুরী ও ফজলে নুর তাপসসহ সবাই মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে তার অনুপস্থিতির কারণ জানতে চান। সচিব বলেন, তাকে সবভাবে উপস্থিত হওয়ার জন্য বার্তা দিলেও তিনি কেন আসেননি তার প্রকৃত কারণ তিনিই বলতে পারবেন। পরবর্তী সভায় এমডির উপস্থিতি নিশ্চিত হতে সুপারিশ জানায় কমিটি।

এছাড়া বৈঠকে জনবহুলপূর্ণ ঢাকাবাসীকে সুপেয় পানি সরবরাহ করার জন্য ঢাকা সিটি করপোরেশনের মতো ঢাকা উত্তর ওয়াসা এবং ঢাকা দক্ষিণ ওয়াসা করার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে কমিটি সুপারিশ করে।

সূত্র জানায়, স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতাধীন বেশকিছু প্রকল্পের অগ্রগতিতে কমিটি অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং আগামী ৩০ জুনের মধ্যে এ বিষয়ে রিপোর্ট প্রদানের জন্য কমিটি সুপারিশ করে। কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, আগামীতে নতুন কোনো প্রকল্প নেওয়ার আগে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনের তাগিদ দেওয়া হয়। বলা হয়, মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটির সুপারিশের আলোকে নতুন প্রকল্প নেওয়ার জন্য। এদিকে জনস্বাস্ব্য প্রকৌশল অধিদফতরের আওতাধীন গৃহীত প্রকল্পের বিষয় আগামী দুই মাসের মধ্যে মূল্যায়ন রিপোর্ট প্রদানের জন্য কমিটি সুপারিশ করে। এছাড়া ঢাকার বাইরের সিটি করপোরেশনের কোনো কর্মকর্তা বৈঠকে উপস্থিত না হওয়ায় কমিটি ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং ব্যাখ্যাসহ আগামী বৈঠকে উপস্থিত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য মন্ত্রণালয়কে কমিটি সুপারিশ করে।

 

"