গ্রীষ্মের শুরুতেই বাড়ছে শিশুরোগ

সতর্ক থাকার পরামর্শ

প্রকাশ : ২১ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

গ্রীষ্মের শুরুতে তাপমাত্রা বাড়তে থাকায় নানা ধরনের অসুখ দেখা দিচ্ছে শিশুদের মধ্যে। গত কয়েক দিনে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে শিশু রোগীর সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়েছে। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এসব শিশুর মধ্যে ডায়রিয়ায় আক্রান্তের হার বেশি। এছাড়া নিউমোনিয়া ও জ্বরে আক্রান্ত হয়েও হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে অনেক শিশু। বছরের গ্রীষ্ম মৌসুমের শুরুতেই ডায়রিয়ায় আক্রান্তের হার সাম্প্রতিক বছরগুলোর রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। চলতি মাসের শুরু থেকেই ডায়রিয়া রোগীর আকস্মিক চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর’বি) ও ঢাকা শিশু হাসপাতালসহ দেশের অন্য হাসপাতালগুলো। বর্তমানে রেকর্ডসংখ্যক রোগী হয়েছে আইসিডিডিআরবিতে। এদিকে আকস্মিক রোগীর চাপ বাড়ায় আইসিডিডিআর’বিতে টাঙানো হয়েছে অস্থায়ী তাঁবু। মোট রোগীর মধ্যে ৩০ শতাংশই শিশু।

মোটামুটি একই চিত্র দেশের অন্যান্য হাসপাতালেও। ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে শুধু শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে দেড় শতাধিক শিশু। ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট, নিউমোনিয়া, জ্বর, ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়াজনিত নানা রোগের চিকিৎসা নিচ্ছে তারা।

খুলনা শিশু হাসপাতালে গত দুই সপ্তাহে ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত ২৬০ শিশু ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছে। এর মধ্যে শুধু ডায়রিয়াতেই আক্রান্ত হয়েছে ১৫০ শিশু। এছাড়া প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে ৩ শতাধিক শিশু। একই অবস্থা নগরীর খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগেও। ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন গড়ে ৫০ থেকে ৬০ শিশু এখানে চিকিৎসাসেবা নিচ্ছে। চিকিৎসকরা জানান, নগরীর সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোয় অসুস্থ অবস্থায় ভর্তি হওয়া শিশুদের অধিকাংশেরই বয়স ছয় মাস থেকে দেড় বছরের মধ্যে।

খুলনা শিশু হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সৈয়দ ইমতিয়াজ আহমেদ জানান, পাঁচদিন ধরে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা বেড়েছে। গরমে বুকে ঘাম বসে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা।

চিকিৎসকরা জানান, বিরূপ আবহাওয়ার কারণে শরীরে ঘাম শুকিয়ে গিয়ে সর্দি, কাশি ও নিউমোনিয়ার প্রাদুর্ভাব বাড়ছে। আবার ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দিচ্ছে গরমে বাইরের দূষিত পানি পান ও নষ্ট খাবার খাওয়াসহ নানা কারণে। গরমে ডায়রিয়ার ব্যাকটেরিয়ার প্রজনন ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়। এছাড়া গরমে খাবারও দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। তাই বাসি খাবার খেলে ডায়রিয়া হয়। এ কারণে গরমে শিশুরা যাতে বিশুদ্ধ পানি পান করে, সতেজ খাবার খায় ও প্রতিবার খাওয়ার আগে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নেয়; সে বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

 

"