রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক ও নিন্দা

প্রকাশ : ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের দুটি মসজিদে গুলি চালিয়ে ৪৯ জন নিহত এবং বহু লোক আহত হওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি এম আবদুল হামিদ। এক শোক বার্তায় তিনি বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতের ঘটনায় আমরা গভীরভাবে মর্মাহত। অপরদিকে, নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা অর্ডেনের কাছে পাঠানো এক শোকবার্তায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হামলার ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেন। এই হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন খ্রিস্টান ধর্মের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা পোপ ফ্রান্সিস। তিনি বলেন, অর্থহীন সহিংসতায় প্রাণহানি এবং মানুষ আহত হওয়ার ঘটনায় তিনি গভীরভাবে শোকাহত। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মাধ্যমে পাঠানো এক টেলিগ্রামের মাধ্যমে পোপ ফ্রান্সিস নিউজিল্যান্ডের সব নাগরিক, বিশেষ করে মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেন। এছাড়া হামলার ঘটনায় ব্রিটেনের রানি আনুষ্ঠানিকভাবে শোক প্রকাশ করেছেন। বাকিংহাম প্যালেস রানির বরাত দিয়ে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে।

বিশ্ব নেতাদের প্রতিক্রিয়া, নীরব ট্রাম্প : হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতা ও তাদের প্রতিনিধিরা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান এ নিয়ে বিবৃতি দিয়ে সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। কিন্তু ব্যতিক্রম ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডেনাল্ড ট্রাম্প। এ বিষয়ে তাকে কোনো বিবৃতি দিতে দেখা যায়নি। তবে নিউজিল্যান্ডে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত স্কট ব্রাউন এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, তিনি এই হামলার ঘটনায় মর্মাহত হয়েছেন।

এই ঘটনায় সমবেদনা জানিয়েছে মালয়েশিয়া। হামলায় তাদের দুই নাগরিক আহত হয়েছেন। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই বর্বর হত্যাকান্ডের পেছনে দায়ীদের বিচারের আওতায় আনার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছে। ফিজির প্রধানমন্ত্রী ফ্যাঙ্ক বেইনিমারামা বলেছেন, নিউজিল্যান্ডে আমাদের ভাই-বোনদের প্রতি ফিজির জনগণের সমবেদনা। ওই হামলার ঘটনায় এক বা দুজন ফিজির নাগরিক থাকতে পারেন বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি জানিয়েছেন, তিনি এমন হামলার তীব্র নিন্দা জানান। বিশেষ করে শুক্রবার জুমার নামাজের সময় এমন হামলার সমালোচনা করেছেন তিনি।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান বলেছেন, বর্ণবাদ এবং ইসলামভীতি বেড়ে যাওয়ার সবচেয়ে বড় উদাহরণ এ হামলা। ক্রাইস্টচার্চে হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে নিউজিল্যান্ডের জনগণের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ৯/১১ পরবর্তী সময়ে ক্রমবর্ধমান ইসলামবিদ্বেষকে আমি এজন্য দায়ী করছি। ওই ঘটনার পর থেকেই ১৩০ কোটি মুসলিমকে যে কোনো সন্ত্রাসের জন্য দায়ী করা হয়। সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনওয়ার গার্গাশ বলেছেন, সহিংসতা ও ঘৃণার বিরুদ্ধে আমাদের সম্মিলিত কাজ অবশ্যই চালিয়ে যেতে হবে নতুন দৃঢ়তায়।

সন্ত্রাসী হামলা তীব্র নিন্দা ও শোক প্রকাশ করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক শোকবার্তায় মন্ত্রী গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশের পাশাপাশি নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করেন। এ ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, বাংলাদেশের ক্রিকেট দল চরম সৌভাগ্যবান ছিল। শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দলের পক্ষ থেকে এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

নিন্দার ঝড়ে শামিল শোয়েব ও সাকিব : নিউজিল্যান্ডে ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলায় অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। এতে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন পাকিস্তানের সাবেক স্পিডস্টার শোয়েব আখতার। আর এ হামলার নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশের টেস্টের টি-টুয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড়ে শামিল হয়েছেন পাকিস্তানের শোয়েব আখতার। এক টুইটে শোয়েব লিখেছেন, ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ছবি দেখলাম। আমি স্তম্ভিত ও শঙ্কিত। আমরা কি এখন প্রার্থনাস্থলেও নিরাপদ নই? এমন বর্বর হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাই। তবে আমি আনন্দিত যে, বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা নিরাপদ আছেন।

এদিকে জাতীয় টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও সোশ্যাল সাইটে এ হামলার নিন্দায় সরব হয়েছেন। সাকিব লিখেছেন, ‘যে কোনো ধরনের সন্ত্রাসবাদ নিন্দনীয়। এটা আরো খারাপ হয়ে ওঠে যখন, এর শিকার হয় উপাসনারত সাধারণ নিরাপরাধ মানুষ। যারা এক কাপুরুষের হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন তাদের জন্য প্রার্থনা এবং যারা প্রিয়জন হারিয়েছেন, সেসব পরিবারগুলোর প্রতি আমি সমাবেদনা জানাচ্ছি।’ সাকিব লিখেন, ‘আল্লাহকে ধন্যবাদ জানাই, তিনি আমাদের দলকে এই ভয়াবহ হামলা থেকে নিরাপদে রেখেছেন। আশা করছি, তারা খুব তাড়াতাড়ি নিরাপদে দেশে ফিরে আসবে।’

 

"