ডাকসু নির্বাচন

আজ কী করবে ৫ প্যানেল

প্রকাশ : ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

জিয়াউদ্দিন রাজু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে নতুন করে তফসিল ঘোষণার তিন দিনের আলটিমেটাম শেষ হচ্ছে আজ শনিবার। আলটিমেটাম দেওয়া পাঁচ প্যানেল হলোÑ ছাত্রদল, বামজোট, ছাত্র ফেডারেশন, সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ও স্বতন্ত্র জোট। তাদের দাবির মধ্যে রয়েছে, নির্বাচনের পুনঃতফসিল ঘোষণা, অনিয়মের সঙ্গে যুক্তদের পদত্যাগ এবং মামলা প্রত্যাহার। এই দাবি নিয়ে গত বুধবার উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করেছেন নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুরের নেতৃত্বে ১১ সদস্যের প্রতিনিধিদল। তারা উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের সঙ্গে দেখা করে ডাকসু নির্বাচন বাতিল ও পুনর্নির্বাচন দাবিতে স্মারকলিপি দেন। এদিকে আলটিমেটামের দিন শেষ হচ্ছে আজ। এরই মধ্যে দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের হুমকি দেন নেতারা। তারা বলছেন, দীর্ঘ ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচন ইতিহাসে কলঙ্কিত হয়ে থাক, তা তারা চান না। ভোটের দিনে যারা ভোট-সংশিষ্ট বিষয়ে যুক্ত ছিলেন তাদের বিরুদ্ধে একটি ছাত্র সংগঠনকে নির্বাচিত করার অভিযোগ এনেছেন এই নেতারা।

এদিকে পাঁচটি প্যানেলের পুনর্নির্বাচনের দাবির সঙ্গে একাত্মতা জানিয়েছেন ডাকসুর নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুর। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের যে কোনো যৌক্তিক দাবির সঙ্গে আমি আছি এবং থাকব।

এ নিয়ে বাম ছাত্রজোটের ভিপি প্রার্থী লিটন নন্দী বলেছেন, যদি ডাকসু নির্বাচন বাতিল করে পুনঃতফসিল দেওয়া না হয়, একই সঙ্গে এই নির্বাচন পরিচালনার সঙ্গে যারা যুক্ত ছিলেন, তারা যদি পদত্যাগ না করেন এবং মামলা প্রত্যাহার করা না হয়, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব রক্ষার্থে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অচল করে দিতে বাধ্য হব।

স্বতন্ত্র জোট থেকে ভিপি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী অরণি সামন্তী খান বলেন, আমরা উপাচার্যের কাছ থেকে কোনো আশ্বাস পাইনি। আমরা পুনর্নির্বাচনের জন্য আন্দোলন চালিয়ে যাব।

কোটা আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ বলেন, ডাকসুতে ইতিহাসের ‘কলঙ্কিত’ নির্বাচন হয়েছে। আমরা ফের নির্বাচন চাই। এদিকে গতকাল শুক্রবার বিকেলে ডাকসু পুনর্নির্বাচনের দাবিতে ভুখা মিছিল করেছেন বিশ্ববিদ্যলয়ের শিক্ষার্থীরা। রাজু ভাস্কর্যের সামনে থেকে অনশনরত ছয় শিক্ষার্থী ভুখা মিছিল শুরু করেন। এ সময় ঢাবির বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরাও মিছিলে যোগ দেন। মিছিলটি ঢাবির বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে একইস্থানে এসে শেষ হয়।

এ সময় অনশনে থাকা আট শিক্ষার্থীর মধ্যে দুজন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। পরে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। তবে হাসপাতালের বিছানায় শুয়েও অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন এক শিক্ষার্থী। দাবি আদায়ে বাকি ছয় শিক্ষার্থীও রাজু ভাস্কর্যের সামনে অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা এ নির্বাচন মানেন না বলে জানিয়েছেন।

শিক্ষার্থীদের এসব দাবির বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেন, সবার কর্মপ্রয়াস, আন্তরিকতা, সময় ও শ্রমকে নস্যাৎ করার এখতিয়ার আমার নেই। প্রত্যেকটি প্রক্রিয়া, প্রত্যেকটি কার্যক্রম রীতিনীতি মানতে হবে।

ডাকসু ও হল সংসদে পুনর্নির্বাচনের দাবি মানা সম্ভব নয় বলে জানিয়ে ড. আখতারুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে সুষ্ঠু পরিবেশ বিরাজ করছে। কেউ বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দীর্ঘ ২৮ বছর পর ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে ২৫টি পদের মধ্যে দুটি ছাড়া সব পদে জয় পায় ছাত্রলীগ। ভোটের দিনই নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ভোট বর্জন করে ছাত্রলীগ ছাড়া সব প্যানেল। এর পর থেকে তারা পুনর্নির্বাচন দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

"