প্রধানমন্ত্রী সেই বদিউজ্জামানকে দিলেন ৫০ লাখ টাকা

প্রকাশ : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার জন্য হুজি নেতা মুফতি হান্নানের প্রচেষ্টা ফাঁস করে দেওয়া সেই বদিউজ্জামান সরদার পেলেন ৫০ লাখ টাকা। গত রোববার তাকে এই অর্থ প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রী। গতকাল শুক্রবার কোটালীপাড়া ফিরে এসব কথা জানান বদিউজ্জামান।

গতকাল শুক্রবার বদিউজ্জামান সরদার এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মন খুলে আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি আমাকে ৫০ লাখ টাকা দিয়েছেন। তার এই মহানুভবতায় আমি অত্যন্ত খুশি। আমি তার মঙ্গল ও সুস্বাস্থ্য কামনা করি।’

দিনটি ছিল ২০০০ সালের ২০ জুলাই। গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার শেখ লুৎফর রহমান আদর্শ সরকারি কলেজ মাঠে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার জনসভা করার কথা ছিল সেদিন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে ওই সভাস্থলে হুজি নেতা মুফতি হান্নান ৭৬ কেজি ওজনের বোমা পুঁতে রেখেছিল। কিন্তু জনসভার পাশের চায়ের দোকানদার বদিউজ্জামান সরদার জনসভার আগের দিন সকালে পুকুরে চায়ের কেটলি ধুতে গিয়ে একটি তার দেখতে পান। তার মনে সন্দেহ হয়, আশপাশের লোকজনকে ডেকে বদিউজ্জামান সেই তারটি দেখান। খবর পেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ছুটে আসেন। শুরু হয় তল্লাশি। সন্ধান মেলে ৭৬ কেজি ওজনের বোমার আর প্রাণে বেঁচে যান আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরপর কেটে গেছে প্রায় ১৯টি বছর। বদিউজ্জামান সরদার শত চেষ্টা করেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে পারেননি। পরপর তিনবার আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসায় কোটালীপাড়ার অনেক নেতার ভাগ্যের চাকা ঘুরলেও ঘোরেনি বদিউজ্জামান সরদারের। সম্প্রতি বদিউজ্জামান সরদার উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক সোহরাব হোসেন হাওলাদারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন।

সোহরাব হোসেন হাওলাদার বলেন, ‘গত ২৭ জানুয়ারি বদিউজ্জামান সরদারকে নিয়ে আমি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করি। প্রধানমন্ত্রী উদার মনে বদিউজ্জামানের সঙ্গে কথা বলেন। এরপর গত রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দফতরে বসে বদিউজ্জামানের হাতে ৫০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন।’

 

"