নাব্য সংকট, চ্যানেল সরু

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে ফেরি

প্রকাশ : ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

ঢাকার সঙ্গে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার নৌপথে প্রবেশদ্বার খ্যাত রাজবাড়ী জেলার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া। এই নৌপথে প্রতিদিন হাজারো যানবাহন আর লাখো যাত্রী পদ্মা পাড়ি দেন। বর্তমানে এই রুটে নাব্য সংকট ও সরু চ্যানেলে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ১৬টি ফেরিসহ অন্য নৌযান। নাব্য সংকট কাটাতে খনন কাজ চললেও ওয়ানওয়ে সরু চ্যানেলের কারণে পাশাপাশি দুটি ফেরি অতিক্রম করতে সমস্যায় পড়ছে। শীতের ভোরে কুয়াশায় পাশাপাশি দুটি ফেরি অতিক্রম করার সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়ে যাচ্ছে।

গত ২৬ ডিসেম্বর পাটুরিয়ার ৩ নম্বর ফেরিঘাট থেকে যানবাহন নিয়ে দৌলতদিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে আসে ইউটিলিটি (ছোট আকারের) ফেরি বনলতা। ফেরিটি ঘাট ছেড়ে কিছু দূর আসার পর সরু চ্যানেল অতিক্রম করার সময় পেছনে ছোট বড় আরো তিনটি ফেরি অপেক্ষা করছিল। এ সময় বিপরীত দিকে দৌলতদিয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া আরো চারটি ফেরি ওই চ্যানেলে প্রবেশের অপেক্ষা করছিল। অপেক্ষাকৃত মাঝারি আকৃতির ফেরিটি চ্যানেলে প্রবেশ করার সঙ্গে সঙ্গেই বনলতা ফেরির চালকের আসনে থাকা তৃতীয় মাস্টার (হুইল সুকানি) মোকারম হোসেন সংকটময় পরিস্থিতিতে পড়েন। একদিকে পেছনে তিনটি ফেরি একইসঙ্গে বিপরীত দিকে আরো তিন চারটি ফেরি। চ্যানেলের পূর্ব দিকে মাটি খনন করার ড্রেজিং যন্ত্র এবং পশ্চিমে রয়েছে বালুর চর। চরের সীমানা ঘেঁষে পানি কম দেখে মার্কিং পয়েন্ট চিহ্নিত দেওয়া থাকলেও মাস্টার উপায় না পেয়ে বাধ্য হয়ে মার্কিং পয়েন্ট ভেদ করে বালু চরের দিকে ঢুকে পড়েন। এ সময় চিৎকার করে ফেরির ডকে (ওপরে) থাকা যাত্রীদের দ্রুত নিচে নামতে বলেন। এক পর্যায়ে প্রায় ১৫ মিনিট এভাবে চলার পর কোনো রকমে চ্যানেলটি অতিক্রম করতে সক্ষম হয় ফেরিটি।

ফেরিটির চালক মোকারম হোসেন বলেন, ‘এভাবে কি ফেরি চালানো যায়? চ্যানেলের প্রস্থ এত কম যে পাশাপাশি দুইটি বড় ফেরি অতিক্রম করতে গেলে একটির সঙ্গে আরেকটির সংঘর্ষ লেগে যাওয়ার উপক্রম হয়। দুই দিন আগে একবার দুটি ফেরির মধ্যে হালকা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অল্পের জন্য সবাই রক্ষা পান। বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটলে হতাহতের মতো ঘটনা ঘটতে পারত। এছাড়া এখন শীতের সময়। যেকোনো মুহূর্তে রাতে ঘনকুয়াশা পরতে পারে। কুয়াশার কারণে রাতের বেলায় এই চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল করা খুবই কঠিন। জরুরি ভিত্তিতে চ্যানেলের প্রস্থ আরো বাড়ানো দরকার।’

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সফিকুল ইসলাম জানান, ‘বর্তমানে দৌলতদিয়া পাটুরিয়া নৌ রুটে ১৬টি ফেরি যানবাহন ও যাত্রী পারাপারে চলাচল করছে। নদীতে নাব্য সংকট থাকায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।’

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক খোরশেদ আলম জানান, ‘বিআইডব্লিউটিএ-র খনন বিভাগ খনন করছে। কিন্তু পাটুরিয়া ও দৌলতদিয়া ঘাটের কাছে চ্যানেলের প্রস্থ তুলনামূলক কম থাকায় মাঝে মধ্যে পাশাপাশি দুটি ফেরি যাতায়াতকালে সমস্যায় পড়তে হয়। চ্যানেলের প্রস্থ আরো বাড়ানো দরকার। এই শীত মৌসুমে ঘন কুয়াশায় চলাচলে আরো সমস্যার আশঙ্কা রয়েছে।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) খনন বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. মাসুদ হোসেন জানান, ‘আগে ২৪০ ফুট প্রস্থ করে চ্যানেল তৈরি করা হতো। বর্তমানে বাড়িয়ে ৩৬০ ফুট করা হয়েছে। সমস্যা হলো ওই চ্যানেলেই খনন যন্ত্র ও তার যন্ত্রাংশ থাকায় প্রস্থ কমে যাওয়ায় দুটি ফেরি একত্রে চলাচল করতে কিছুটা বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। দ্রুত এসব সমস্যা সমাধানে কাজ চলছে।’

"