দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অর্থনীতির সবচেয়ে বর্ধিষ্ণু

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ama ami

২০১৮ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির দেশ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে বাংলাদেশ। তবে ধারণা করা হচ্ছে, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে শীর্ষস্থানে ফিরে আসবে ভারত। এমনটাই উঠে এসেছে বিশ্ব ব্যাংকের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে। বিশ্ব ব্যাংকের এই প্রতিবেদনের শিরোনাম দেওয়া হয়েছে, ২০১৯ গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্ট রিপোর্ট। গত মঙ্গলবার প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে (১ জুলাই থেকে ৩০ জুন) বাংলাদেশের আনুমানিক প্রবৃদ্ধি ছিল ৭ দশমিক ৯ শতাংশ। একই সময়ে ভারতের আনুমানিক প্রবৃদ্ধি ছিল ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। পাকিস্তানের প্রবৃদ্ধি ছিল ৫ দশমিক ৮ শতাংশ।

বিশ্ব ব্যাংক বলছে, ২০১৮ সালে বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধির মূল চালিকাশক্তি ছিল শক্তিশালী ব্যক্তিগত রেমিট্যান্স প্রবাহ। তবে ক্রমবর্ধমান হারে খাদ্য ও যন্ত্রপাতি আমদানি এবং দুর্বল রফতানির ফলে নিট রফতানি ছিল নেতিবাচক।

প্রতিবেদনে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলা হয়, বাংলাদেশে শক্তিশালী অর্থনৈতিক কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। তবে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির গতি কিছুটা মন্থর হয়ে ৭ শতাংশে দাঁড়াতে পারে বলে আভাস দিয়েছে সংস্থাটি।

বিশ্ব ব্যাংকের ধারণা, আগামী তিন বছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। ব্যক্তিগত খাত ও অবকাঠামো প্রকল্পের পেছনে ব্যাপক বিনিয়োগ হবে। অভ্যন্তরীণ চাহিদার ফলে রফতানির চেয়ে আমদানি বেশি হওয়ায় জিডিপি বৃদ্ধিতে নেতিবাচক ফল আসার আশঙ্কা রয়েছে। প্রতিবেদনে ২০১৯ সালের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ার প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ১ শতাংশে উন্নীত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়েছে।

"