ডেমরায় দুই শিশু খুন

লিপস্টিকের প্রলোভনে ধর্ষণচেষ্টা চিৎকার করায় হত্যা!

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকার ডেমরায় শিশু নুসরাত জাহান ও ফারিয়া আক্তার দোলা হত্যা মামলার মূল আসামি গোলাম মোস্তফা ও তার চাচাতো ভাই আজিজুল বাওয়ানী আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। গতকাল বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসিম আসামিদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়। এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডেমরা থানার এসআই শাহ আলম আসামিদের আদালতে হাজির করেন। আসামিরা স্বেচ্ছায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় তা রেকর্ড করার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তা রেকর্ড করেন আদালত। এর আগে গত মঙ্গলবার রাতে ঢাকার ডেমরা ও যাত্রাবাড়ী এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। গতকাল দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির ওয়ারী বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, লিপস্টিক দিয়ে সাজিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অসৎ উদ্দেশ্যে শিশু নুসরাত ও ফারিয়াকে ঘরে ডেকে নেয় গোলাম মোস্তফা। ভাই আজিজুল বাওয়ানীকে আগেই খবর দিয়ে বাসায় ডেকে আনেন তিনি। ঘরে ডেকে প্রথমে শিশু দুটিকে নিজের স্ত্রীর লিপস্টিক দিয়ে সাজায় মোস্তফা। এরপর তারা দুই ভাই মিলে ইয়াবা সেবন করে শিশু দুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। কিন্তু তাদের চিৎকারে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে ফারিয়াকে গলাটিপে হত্যা করে আজিজুল। আর নুসরাতকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে হত্যা করে মোস্তফা।

গত সোমবার রাতে ডেমরার নাসিমা ভিলায় মোস্তফার ঘরে শিশু নুসরাত জাহান (৪) ও ফারিয়া আক্তার দোলার (৫) মরদেহ পাওয়া যায়। এর আগে ওই দিন দুপুর থেকে তারা নিখোঁজ ছিল। ওই ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিহত নুসরাতের বাবা পলাশ হাওলাদার বাদী হয়ে ডেমরা থানায় একটি মামলা (নং-১২) দায়ের করেন। এদিন মামলার এজাহার আদালতে পৌঁছালে আদালত আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ ধার্য করেন।

পুলিশ বলছে, অভিযুক্ত দুজনই মাদকাসক্ত। ঘটনাস্থল থেকে ইয়াবা সেবনের আলামতও উদ্ধার করা হয়েছে। এ ছাড়া মোস্তফার নামে আগেও মামলা রয়েছে যাত্রাবাড়ী থানায়। ওই বাসা থেকে ইয়াবা সেবনের আলামত পাওয়া গেছে। বাচ্চাদের পরা স্যান্ডেল, যে গামছা দিয়ে মারা হয়েছে সেটা এবং সেই ক্যাসেটও জব্দ করা হয়েছে। এ ছাড়া গে-ারিয়ায় শনিবার আরেক শিশুকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে নাহিদ নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই ঘটনাতেও মাদকাসক্ত ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে।

"