বন্দুকযুদ্ধ

বাচ্চু হত্যার দুই সন্দেহভাজনসহ নিহত ৩

প্রকাশ : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

মুন্সীগঞ্জ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মুন্সীগঞ্জে মুক্তমনা লেখক ও প্রকাশক শাহজাহান বাচ্চু হত্যায় জড়িত দুই সন্দেহভাজন ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে মাকদ কারবারি নিহত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে ও বুধবার রাতে এসব ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলোÑ কাকা ওরফে শামীম, এখলাছ ও আবুল হোসেন বাবু। এদের মধ্যে শামীম ও এখলাস জেএমবির সদস্য বলে জানিয়েছে পুলিশ। মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, মোটরসাইকেলে আসা দুই ব্যক্তিকে শ্রীনগর চেকপোস্টে থামার সংকেত দেয় পুলিশ। কিন্তু তারা সংকেত না মেনে অন্য রাস্তায় পালানোর চেষ্টা করে। পুলিশ ধাওয়া করলে তারা মোটরসাইকেল থেকে গুলি ছুড়তে শুরু করে। পুলিশও তখন পাল্টা গুলি করে। একপর্যায়ে দুজনেই গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছে পুলিশের তিন সদস্য। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গত ১১ জুন মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে বিশাখা প্রকাশনীর মালিক শাহজাহান বাচ্চুকে (৫৫) গুলি করে হত্যা করা হয়। ঘটনার এক দিন পর শাহজাহান বাচ্চুর স্ত্রী অজ্ঞাতনামা চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার নয়াদিয়াড়ী এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক কারবারি আবুল হোসেন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন র‌্যাবের দুই সদস্যও। নিহত আবুল গোমস্তাপুরের শিবরামপুর গ্রামের ইউপি সদস্য আলমের ছেলে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিপিসি-১ র‌্যাবের কমান্ডার সাইদ আব্দুল্লাহ জানান, গোমস্তাপুর উপজেলার নয়াদিয়াড়ী এলাকায় বৃস্পতিবার রাতে টহল দিচ্ছিল র‌্যাবের একটি দল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, ওই এলাকার একটি আমবাগানে চার-পাঁচজনের একটি মাদকচক্রের দল মাদক কেনা-বেচা করছে। এমন খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালায় র‌্যাব। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় মাদক ব্যবসায়ীরা। র‌্যাবও পাল্টা গুলি করে। এ সময় তারা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় আমবাগানে তল্লাশি চালালে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে পাওয়া যায়। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয় একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন, তিন রাউন্ড গুলি ও ১৭৭ বোতল ফেনসিডিল। আর গুলিবিদ্ধ আবুলকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

"