ঈদুল আজহা ২২ আগস্ট

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের আকাশে গতকাল রোববার সন্ধ্যায় জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে আগামী ২২ আগস্ট (বুধবার) দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদ্যাপিত হবে। বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দ্বীনি দাওয়াত ও সংস্কৃতি বিভাগে ফোন করে ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা চাঁদ দেখার খবর জানিয়েছেন। কক্সবাজার থেকে চাঁদ দেখার সংবাদ জানান ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক। এদিকে সৌদি আরবের আকাশে গত শনিবার সন্ধ্যায় পবিত্র জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। সে হিসেবে আগামী ২১ আগস্ট সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যে পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্যাপিত হবে। আর পবিত্র হজ হবে আগের দিন, অর্থাৎ ২০ আগস্ট। ফলে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে ২১ আগস্ট ঈদুল আজহা উদ্যাপিত হবে। ঈদুল ফিতরের পর ঈদুল আজহা মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব। ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত এ উৎসবে মুসলমানরা তাদের প্রিয় বস্তু মহান আল্লাহর নামে উৎসর্গ করে তার সন্তুষ্টি অর্জনের চেষ্টা করেন। ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হওয়ার সময়ই লাখ লাখ মুসলমান সৌদি আরবের পবিত্র ভূমিতে হজব্রত পালনরত অবস্থায় থাকেন। হাজিরা ঈদের দিন সকালে কোরবানি দেন। এবার ঈদে ২১, ২২ ও ২৩ আগস্ট সরকারি ছুটি থাকবে।

গ্রামের বাড়িতে প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে রেল, সড়ক ও নৌপথে রাজধানী ছাড়বেন অসংখ্য মানুষ। এতে ফাঁকা হয়ে পড়বে ঢাকা। এদিকে, হজের অংশ হিসেবে হাজিরা ১৮ আগস্ট সন্ধ্যার পর মক্কা থেকে মিনার উদ্দেশে রওনা হবেন। ১৯ আগস্ট সারা দিন মিনায় অবস্থান করে সেদিন রাতে আরাফাতের ময়দানের পথে যাত্রা করবেন। ২০ আগস্ট আরাফাতের ময়দানে অবস্থিত মসজিদে নামিরা থেকে হজের খুতবা দেওয়া হবে। এ দিনটিকে বলা হয় আরাফার দিন। হজের খুতবা শেষে জোহর ও আসরের নামাজ একত্রে আদায় করবেন হাজিরা। সেদিন সূর্যাস্তের পর আরাফা থেকে মুজদালিফায় যাবেন। সেখানে গিয়ে হাজিরা মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করবেন। মুজদালিফায় খোলা আকাশের নিচে সারা রাত অবস্থান করবেন এবং শয়তানের প্রতীকী স্তম্ভে কঙ্কর নিক্ষেপের জন্য তা সংগ্রহ করবেন।

ফজরের নামাজ শেষে বড় জামারায় (প্রতীকী বড় শয়তানকে) পাথর নিক্ষেপ করতে মিনায় যাবেন। পাথর নিক্ষেপ শেষে পশু কোরবানি দেবেন হাজিরা। এ বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ২৬ হাজার ৭৯৮ জনসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ১৮ লক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান হজে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে। অন্যদিকে, গতকাল সকাল পর্যন্ত ৩২১টি ফ্লাইটে এক লাখ নয় হাজার ৬৭ বাংলাদেশি হজযাত্রী সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। এদের মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ছয় হাজার ৭৫৫ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ দুই হাজার ৩১২ জন হজে গেছেন। বাংলাদেশ থেকে যাওয়া হাজিরা বর্তমানে পবিত্র মক্কা ও মদিনায় অবস্থান করছেন।

"