কলকাতায় অমিত শাহ

বাংলাদেশিদের ভারত থেকে তাড়াবই

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

আগে বাংলাদেশি অনুবেশকারীদের তাড়ানোর কথা বলতেন তৃণমূল নেত্রী ও পশ্চিবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ২০০৫ সালে লোকসভায় দাঁড়িয়ে তিনি নিজেই এই ইস্যুতে সংসদ সভা উত্তালই শুধু করেননি বরং তার হাতে থাকা ফাইলও স্পিকারের দিকে ছুড়ে মেরেছিলেন। কিন্তু এখন তিনি বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদেরই ভোট ব্যাংক বানিয়েছেন। তবে এখন খোদ দেশটির ক্ষমতাসীন বিজেপি চাইছে ভারতে বাংলাদেশিরা আর না থাকুক। গতকাল শনিবার দুপুরে কলকাতার মেয়ো রোডের বিজেপির রাজনৈতিক সভায় দাঁড়িয়ে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বলেন, আমাদের কাছে দেশ আগে, পরে অনুপ্রবেশকারী। তাই বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের আমরা ভারত থেকে তাড়াবই।

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতির মুখে এদিন পরিষ্কার হুমকিও শোনা যায়। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীরাই বোমার কারখানা তৈরি করেছে। এসব অনুপ্রবেশকারীকে রাজ্য থেকে তাড়ানো হবে। পশ্চিমবঙ্গবাসীকে এর জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বের প্রতি আস্থাশীল হয়ে রাজ্যে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনতে হবে।

পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে এখন তৃণমূলের মাফিয়া রাজত্ব চালাচ্ছে বলেও অমিত শাহ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, বিমানবন্দর থেকে কলকাতা আসার পুরো পথ জুড়ে তৃণমূল ব্যানার লিখেছে যে বাংলা বিরোধীদের তাড়ান। কিন্তু আমরা বাংলাবিরোধী নই, আমরা মমতা এবং তৃণমূলবিরোধী।

মমতাকে উৎখাত করতে বিজেপি জেলায় জেলায় আন্দোলন গড়ে তুলবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে নরেন্দ্র মোদির এই ঝানু রাজনৈতিক সেনাপতি।

অমিত শাহ বলেন, আমরা বাংলাবিরোধী নই, কিন্তু মমতাবিরোধী। মমতা সরকারকে উৎখাত করতে হবে। আমাদের বিজয় রথ থামালে চলবে না। এখানে মোদির নেতৃত্বে সরকার গড়তে হবে, তবেই উন্নয়ন হবে।

সমাবেশে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা প্রমুখরা মমতা সরকারের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন। রাজনৈতিক ওয়াকিবহাল মহলের মতে, সাম্প্রতিক কালে বিজেপির সমাবেশে এত মানুষের সমাবেশ দেখা যায়নি। এদিনের সমাবেশ থেকেই বিজেপি আগামী লোকসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু করে দিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

"