অচেনা মঞ্চে চেনা দ্বৈরথ

আজ মুখোমুখি ফ্রান্স-বেলজিয়াম

প্রকাশ : ১০ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

গত মাসের ১৪ জুন জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠেছিল বিশ্বকাপের ২১তম আসরের। আর এরই মধ্যে সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলে গেল রাশিয়া বিশ্বকাপের ২৬তম দিন। কুমির আর শিয়াল পন্ডিতের গল্পের মতো এখন ৩২ দল থেকে বাকি আছে মাত্র ৪। ১৫ জুলাই লুঝনিকির ফাইনালে যা হয়ে দাঁড়াবে ২। ফেভারিট হিসেবে আসরে এলেও খালি হাতে ফিরে গেছে জার্মানি, আর্জেন্টিনা, পর্তুগাল, স্পেন, উরুগুয়ে ও ব্রাজিলের মতো ফুটবল পরাশক্তির দলগুলো। আর শেষ দুইটি নকআউট পর্ব জিতে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে ফ্রান্স, বেলজিয়াম, ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া। তার মধ্যে ফ্রান্স ও ইংল্যান্ডের অভিজ্ঞতা আছে শিরোপা উঁচিয়ে ধরার। বেলজিয়াম ও ক্রোয়েশিয়া এই নিয়ে মাত্র দুইবার সেমিফাইনালে উঠেছে। রাশিয়া বিশ্বকাপের ‘কালো ঘোড়া’ও তারা।

আজ ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে দুই চেনা প্রতিপক্ষ ফ্রান্স ও বেলজিয়াম। দুই দলই নকআউট পর্ব নিশ্চিত করেছিল গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে। সেমিতে উঠার লড়াইয়ে ১৯৯৮ বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স হারিয়েছে দুই ল্যাটিন জায়ান্ট আর্জেন্টিনা ও উরুগুয়েকে। অন্যদিকে বেলজিয়াম শেষ চারে উঠেছে দীর্ঘ ৩২ বছর পর। কোচ রবার্তো মার্টিনেজের অধীনে সোনালি প্রজন্মের বেলজিয়ানরা নকআউট পর্বে জয় পেয়েছে জাপান ও ব্রাজিলের বিপক্ষে। জাপানের বিপক্ষে কামব্যাকের গল্প লেখা এবং পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে পরাজিত করে এরই মধ্যে ইউরোপ ফুটবলের নতুন শক্তি হিসেবে আবির্ভাবের ঘোষণা দিয়েছে দলটি। ফ্রান্সকে যে আজ ভুগতে হবে তা বললে নিশ্চয় অত্যুক্তি হবে না।

বেলজিয়াম যে কঠিন প্রতিপক্ষ তা মেনে নিচ্ছেন ফ্রান্সের ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানে। কেননা তাকেই যে সামলাতে হবে রোমেলু লুকাকু ও ইডেন হ্যাজার্ডদের। এই রিয়াল মাদ্রিদ তারকা ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বেলজিয়াম তরুণ দল কিন্তু তারা অসাধারণ হয়ে উঠছে। আমরা জানি, ম্যাচটি অত্যন্ত কঠিন হবে। লুকাকো শারীরিকভাবে অত্যন্ত শক্তিশালী, রক্ষণভাগের জন্য সে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। আমরা তাকে কোন জায়গা দেব না। কারণ সে খুব মানসম্পন্ন খেলোয়াড়।’

স্বাভাবিকভাবে আজ ভারানেকে ভুগাতে পারেন লুকাকো। গত দুই ম্যাচে গোল না পেলেও আসরে ৪টি গোল করে গোল্ডেন বলের দৌড়ে দ্বিতীয় স্থানে আছেন এই ইউনাইটেড ফরওয়ার্ড। তবে কোচ মার্টিনেজ তাকে হয়তো আজও বাঁয়ে সরিয়ে দিয়ে আক্রমণভাগের মূল দায়িত্ব দেবেন কেভিন ডি ব্রুইনকে। ব্রাজিলের বিপক্ষে ব্রইনকে ফলস নাইন হিসেবে খেলিয়েছেন তিনি। গত ম্যাচের মতো এবারও মার্টিনেজের কৌশল হতে পারে ৪-৪-৩ ফর্মেশন। ব্রাজিলের বিপক্ষে ৩-৪-২-১ ফর্মেশন ভেঙে নতুন এই ফর্মেশনে সাফল্য পেয়েছিলেন তিনি। মার্টিনেজকে আরেকবার নিজেকে গৌরবান্বিত হতে চাইবেন আজ। আর তার জন্য দলের প্রধান অস্ত্র ও অধিনায়ক হ্যাজার্ড ও ভিনসেন্ট কোম্পানি তো আছেনই। কিন্তু বেলজিয়াম আজ হলুদ কার্ড জটিলতার কারণে পাচ্ছে না রাইট-ব্যাক থমাস মনিয়েরকে। বেলজিয়াম নিজেদের শেষ ২৪ ম্যাচে একটিতেও হারেনি।

তবে স্বস্তির সুবাতাস বইছে ফ্রান্স শিবিরে। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আজ দিদিয়ের দেশমের দলে ফিরছেন মিডফিল্ডার ব্লেইজ মাতুইদি। তার কারণে হয়তো উরুগুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামা কোরেন্টিন তোলিসোকে থাকতে হতে পারে একাদশের বাইরে। আজ মাঠে নামার আগে ইতিহাস থেকে সাহস নিচ্ছে ফরাসিরা। কারণ প্রধান আসরগুলোতে বেলজিয়ামের বিপক্ষে কখনো পরাজয় বরণ করেনি ফ্রান্স। কিন্তু প্রীতি ম্যাচে নিজেদের শেষ সাক্ষাতে ৪-৩ গোলের হারটিও ভুলে গেলে চলবে না তাদের।

দুই বছর আগে ফ্রান্স ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে তুলেছিলেন কোচ দেশম। কিন্তু ঘরের মাঠে শিরোপাটা তাদের তুলে দিতে হয় পর্তুগালের হাতে। সেবার টুর্নামেন্ট সেরা হয়েছিলেন আঁতোয়ান গ্রিজম্যান। আজকে বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠার পথে দেশম পুনরায় ভরসা রাখছেন দলের এই প্রধান অস্ত্রের দিকে। ইউরো ও বিশ্বকাপ মিলে গত ৭ ম্যাচের ছয়টিতে গোল পেয়েছেন এই অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ফরওয়ার্ড। দেশমের আরেক অস্ত্র কিলিয়ান এমবাপ্পেও আজ কেড়ে নিতে পারেন ম্যাচের স্পটলাইট। জোড়া গোল করে আর্জেন্টিনার স্বপ্ন চুরমার করে দিয়েছিলেন এই পিএসজি ফরওয়ার্ড। বিশ্বকাপে টিনেজ বয়সে ৩ গোল করে ছুঁয়ে ফেলেছেন ফুটবল কিংবদন্তি পেলের মাইলফলকও।

একসময় ফ্রান্সের কলোনি ছিল বেলজিয়াম। দেশটির একাংশের ভাষা এখনো ফরাসি। সাবেক প্রভুদের বিপক্ষেই আজ মাঠে নামছে বেলজিয়ানরা। ফ্রান্স তাদের প্রথম আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচও খেলেছিল বেলজিয়ামের বিপক্ষে। ম্যাচটি অবশ্য ড্র হয়েছিল ৩-৩ গোলে।

 

 

জয় পরাজয় ড্র র‌্যাঙ্কিং

ফ্রান্স ২৪ ৩০ ১৯ ৭

বেলজিয়াম ৩০ ২৪ ১৯ ৩

"