নায়কদের ক্রেমলিনে ডাকলেন পুতিন

প্রকাশ : ০৯ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক
ama ami

ঘটন-অঘটনের বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় চমক ছিল রাশিয়া। সেই দলটাই ইতিহাস রচনা করেছে ঘরের মাঠে। সোভিয়েত ইউনিয়ন বিভাজনের পর প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল রাশানরা। পরশু সামারা এরিনায় টাইব্রেকারে থেমে গেছে স্বাগতিকদের পথচলা।

এবারের বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া দলগুলোর মধ্যে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে পিছিয়ে ছিল রাশিয়া। বিশ্বকাপের পর্দাও ওঠার আগে রাশানদের অবস্থান ছিল তালিকার ৭০ নাম্বারে। কিন্তু র‌্যাঙ্কিংটা শুধুই সংখ্যা। ভুতুড়ে বিশ্বকাপে সেটাই প্রমাণ হয়েছে।

গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে এই দলটাই সবার আগে পা রেখেছিল নকআউট পর্বে। শেষ ষোলোতে তো সাবেক চ্যাম্পিয়ন স্পেনের স্বপ্নের সমাধি করে দিয়েছে রাশানরা। টাইব্রেকারে বাজিমাত করেছিলেন চেরিশেভ-ডিজুবারা। হয়তো সেমিফাইনালেও উঠতে পারত স্বাগতিক শিবির। কিন্তু ভাগ্য থামিয়ে দিয়েছে তাদের। কারণ শেষ আটের স্নায়ুক্ষয়ী ২ ঘণ্টার লড়াইয়েও ক্রোয়েশিয়ার কাছে হারেনি দলটি। অতিরিক্ত সময় মিলিয়ে মোট ১২০ মিনিটে ২-২ গোলে সমতায় থাকলেও তারা বাদ পড়েছে টাইব্রেকার ভাগ্যে। চেরিশেভ-সামেদভদের নিয়ে তাই গর্বিত রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

রাশিয়ার এই স্কোয়াডের প্রত্যেককেই নায়ক বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন পুতিন। পরশু সোচিতে দলের হারটা অবশ্য অবশ্য টেলিভিশনে দেখেছেন পুতিন। কিন্তু দলের বিশ্বকাপ শেষ হয়ে যাওয়ায় হতাশ হননি দেশটির রাষ্ট্রপ্রধান। বরং নিজ দেশের ফুটবলারদের নিয়ে গর্বিত পুতিন। কাল পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, ‘তিনি (পুতিন) খেলা দেখেছেন এবং দলকে সমর্থন দিয়ে গেছেন। দারুণ খেলেই আমরা বিদায় নিয়েছি। তারা (রাশিয়া ফুটবলাররা) এখনো আমাদের নায়ক। জীবন দিয়ে খেলে গেছে তারা। চেষ্টা করেছে। আমরা তাদের নিয়ে গর্বিত।’

ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে হেরেও উৎসব থামেনি রাশিয়ার ফুটবলভক্তদের। ম্যাচের পরও দেশের বিভিন্ন জায়গায় উৎসব করেছেন তারা। ঘরের মাঠে আয়োজিত বিশ্বকাপে রাশিয়া যে এত দূর যাবে, সেটি কেউ ভাবেনি। এমনকি তাদের সমর্থকরাও সম্ভবত এতটা আশা করেনি। জাতীয় দলের পারফরম্যান্সে রাশিয়ার বিরোধী দলের নেতা অ্যালেক্সি নাভালানিও গর্বিত, ‘এমন দলকে নিয়ে পুরো দেশ গর্ব করতে পারে।’

গর্ব করার মতো সূর্যসন্তানদের ডেকে পাঠিয়েছেন পুতিন। ক্রেমলিনে রাশান দলের খেলোয়াড় এবং কোচ স্ট্যানিসলাস চের্চেশভকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন দেশটির রাষ্ট্রপ্রধান। পুতিনের মুখপাত্র পেসকভ বলেছেন, ‘শনিবার ম্যাচের আগে পুতিন কোচের সঙ্গে কথা বলেছিলেন এবং শুভ কামনা জানিয়েছিলেন। কোয়ার্টার ফাইনাল শেষে আবারো কোচের সঙ্গে কথা হয়েছে পুতিনের। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ঐতিহাসিক ম্যাচের পারফরম্যান্সে তিনি খুব খুশি হয়েছেন। পরে ফুটবলারদের এবং কোচকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন পুতিন।’

"