খালেদাকে এবার সিএমএইচে নেওয়ার প্রস্তাব স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

প্রকাশ : ১৩ জুন ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএসএমএমইউর পরিবর্তে ইউনাইটেড হাসপাতালে নিতে খালেদা জিয়ার পরিবারের আবেদনের পর তাকে সিএমএইচে নেওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বিএনপি চেয়ারপারসনকে গতকাল মঙ্গলবার সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে হাসপাতালে নেওয়ার প্রস্তুতি থাকলেও তার অনীহার কারণে নেওয়া যায়নি বলে কারা মহাপরিদর্শক সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন জানান। তখন তিনি বলেছিলেন, কারাবিধিতে বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়ার সুযোগ না থাকায় তা পেতে হলে খালেদা জিয়াকে আবেদন করতে হবে। এরপর খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নিজ খরচে চিকিৎসা নেওয়ার আবেদন নিয়ে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে যায়।

সেই আবেদন পাওয়ার পর ইউনাইটেডের বদলে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেওয়ার প্রস্তাব তোলেন আসাদুজ্জামান কামাল। তিনি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, কারাবিধি অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে ‘সর্বোচ্চ সেবা’ দেওয়ার লক্ষ্যে তারা এখন সিএমএইচের প্রস্তাবটি দেবেন।

‘তিনি যদি সেখানে (সিএমএইচ) যেতে চান, আমরা সেখান থেকেও তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে দিতে পারি। আমরা তার চিকিৎসার জন্য সরকারিভাবে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা নিয়েছি।’

বেসরকারি ইউনাইটেডকে বাদ দিয়ে কেনো সিএমএইচÑ উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রাইভেট হাসপাতালটির চেয়ে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও সিএমএইচ অনেক সমৃদ্ধ। সেখানে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারও রয়েছেন। তাছাড়া সিএমএইচ অনেক ক্রাইসিস মোমেন্টে ভূমিকা রেখেছে। সেই বিবেচনায় আমরা সিএমএইচের প্রস্তাব দেব।’

ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার আবেদন বিবেচনার কোনো সুযোগ রয়েছে কি নাÑ এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “এটার কোনো যুক্তি আছে বলে আমার মনে হয় না। সিএমএইচে না যাওয়ার মতো যুক্তি আমার মনে হয় থাকতে পারে না।”

খালেদা জিয়া বা তার পরিবার সিএমএইচের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে ‘সিচুয়েশন বুঝে’ পরবর্তী পদক্ষেপ নেবেন বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এদিকে, কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ইউনাইটেড হাসপাতালেই চিকিৎসা নেওয়ার ব্যাপারে অনড় অবস্থানে রয়েছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির নেতারা বলছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণে বেগম খালেদা জিয়ার আপত্তি আছে এবং সেখানকার পরিবেশ নিয়ে তিনি প্রশ্ন তুলেছেন। এছাড়া চিকিৎসার ক্ষেত্রে রোগীর মানসিক অবস্থাকে আমলে নেওয়াটাই প্রথমত জরুরি বলে মনে করেন বিএনপিপন্থি চিকিৎসকরা।

বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের প্রভাবশালী এক কর্মকর্তা বলেন, ‘বেগম জিয়ার চিকিৎসা বিষয়টি এখন পুরোপুরি সরকার ও তার (খালেদা জিয়া) নিজের ওপর নির্ভর করছে। বাইরে থেকে দল ও নেতারা কেবল বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন হতে পারে। বেগম জিয়া যদি সিএমএইচে যেতে চান, তাহলে তো দলের কিছু করার নেই।’

এ বিষয়ে স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘প্রয়োজনে খালেদা জিয়ার বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসায় যে ব্যয় হবে তা বিএনপি বহন করবে এবং আমরা তাকে অতি দ্রুত ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিতে হবে।’

"