বিএনপি দেশের স্থিতিশীলতা মানতে পারছে না : কাদের

প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আন্দোলন করার মতো কোনো ইস্যু নেই বলেই দেশের স্থিতিশীল অবস্থাকে বিএনপি মেনে নিতে পারছে না। গতকাল রোববার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের ধর্ম বিষয়ক উপকমিটির সভায় তিনি এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশে বর্তমানে শান্তি আছে, স্থিতিশীলতা আছে। এটা বিএনপি সইতে পারছে না। তাই পহেলা বৈশাখের স্বতঃস্ফূর্ত, কালারফুল উদ্যাপনও তাদের ভালো লাগেনি। বিএনপির অন্ধ রাজনীতি পহেলা বৈশাখের উৎসবকেও কাজে লাগিয়েছে। এটি হচ্ছে বিএনপির কুরুচিপূর্ণ রাজনীতি, নষ্ট রাজনীতি। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বিএনপি যে নতুন খোয়াব দেখেছিল তা প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের মধ্য দিয়ে কর্পুরের মতো উড়ে গেছে, হারিয়ে গেছে। তাদের আর কোনো নতুন ইস্যু নেই। তাদের মাঠে নামার কোনো অবস্থাও নেই। যে কারণে তারা হতাশার সাগরে ডুবে গিয়ে আবোল-তাবোল কথা বলছেন।

বৈশাখেও বিএনপি নোংরা রাজনীতিকে কাজে লাগিয়েছে অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, পহেলা বৈশাখে সেলিব্রেশন, কালারফুল লাখ লাখ, কোটি কোটি নারী-পুরুষের উপস্থিতি এবং গ্রাম পর্যায়ে পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন হয়েছে। এ দিনে দেশের প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রেখেছেন। তিনি বিএনপিকে কটাক্ষ করে কোনো বক্তব্য রাখেননি, কোনো রাজনৈতিক বক্তব্য দেননি।

তিনি বলেন, আমি নিজে বাহাদুর শাহ পার্কে যে বক্তব্য দিয়েছি তাতে বিএনপিকে আক্রমণ করে কোনো বক্তব্য রাখিনি। অথচ পহেলা বৈশাখের দিনেও বিএনপি নোংরা রাজনীতিতে মেতে উঠেছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।

বিজেপির আমন্ত্রণে ভারত যাচ্ছে আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবের আমন্ত্রণে আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল সে দেশে সফরে যাবে। ২০ সদস্যের প্রতিনিধিদলটি ২২ এপ্রিল সকালে ঢাকা ছাড়বে। ২৩ এপ্রিল ‘পার্টি টু পার্টি’ আলোচনা হবে। এরপর ২৪ এপ্রিল প্রতিনিধিদল ঢাকায় ফিরবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তার নেতৃত্বে ২০ সদস্যের প্রতিনিধিদলে থাকবেন দলের সভাপতিম-লীর সদস্য পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহামদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এ কে এম এনামুল হক শামীম, মেজবাহ উদ্দিন সিরাজ, মহিবুল হাসান চৌধুরী, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুর, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা, সদস্য গোলাম কবির রাব্বানী এবং এস এম কামাল হোসেন।

"