জাবিতে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট নির্বাচন

আওয়ামীপন্থিরা সংখ্যাগরিষ্ঠ

প্রকাশ : ০১ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০

জাবি প্রতিনিধি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের ফলাফল ঘোষিত হয়েছে। এতে ২৫টি আসনের মধ্যে আওয়ামীপন্থি গ্র্যাজুয়েটরা দুটি প্যানেল থেকে ১৯টি আসন পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। অন্যদিকে বিএনপিপন্থিরা পেয়েছে ছয়টি আসন। গতকাল রোববার ভোর ৫টার দিকে নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ শেখ মো. মনজুরুল হক এ ফল ঘোষণা করেন।

‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল জোট’ প্যানেল থেকে ১৮ জন নির্বাচিত হয়েছেন। এই প্যানেল থেকে নির্বাচিতরা হলেনÑকে এইচ মাহিদ উদ্দিন, মো. কায়কোবাদ হোসাইন, শরীফ এনামুল কবির, ড. মোহাম্মদ আলমগীর কবীর, মো. সোহেল পারভেজ, আশীষ কুমার মজুমদার, শামীমা সুলতানা, কৃষ্ণা গায়েন, পৃথ্বিলা নাজনীন নীলিমা, মহব্বত হোসেন খান, শেখ মনোয়ার হোসেন, মো. মোতাহার হোসেন, আবুল কালাম আজাদ, মোহাম্মদ মেহেদী জামিল, মো. এবায়দুল্লাহ তালুকদার, ইন্দুপ্রভা দাস, মো. মাসুদুর রহমান এবং মো. আনোয়ার হোসেন মৃধা। ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ও প্রগতিশীল গ্রাজুয়েট মঞ্চ’ প্যানেল থেকে নির্বাচিত একমাত্র প্রার্থী হলেন মো. আবদুল মান্নান চৌধুরী। অন্যদিকে ‘স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, বহুদলীয় গণতন্ত্র ও বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী’ প্যানেল থেকে নির্বাচিতরা হলেনÑ ড. মোহাম্মদ কামরুল আহসান, শিহাব উদ্দিন খান, শামীমা সুলতানা, মো. শামসুল আলম সেলিম, সাবিনা ইয়াসমিন ও ড. মো. নজরুল ইসলাম।

এ বিষয়ে নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক বলেন, এটা সাময়িক ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। তিন দিনের মধ্যে যদি কেউ কোনো অভিযোগ না করে, তবে তিন দিন পরে এটি চূড়ান্ত বলে ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনে ভোট পড়েছে তিন হাজার ৬৩৫টি। অর্থাৎ মোট ৮৩ দশমিক ১২ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছেন।

এর আগে গত শনিবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সমাজবিজ্ঞান ভবন এবং নতুন কলা ও মানবিকী অনুষদ ভবন ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। এতে ২৫টি আসনের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ১১৯ জন প্রার্থী।

"