৫০০ চালক নেবে বিআরটিসি

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

চাকরি ডেস্ক

অস্থায়ী ভিত্তিতে ৫০০ জন বাস ও ট্রাকচালক নিয়োগ দেবে দেশের একমাত্র সরকারি পরিবহন সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি)। নিয়োগ পাওয়ার পর বাধ্যতামূলকভাবে ১০ বছর চাকরি করতে হবে। একজন বাস বা ট্রাকচালক জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী ১৬তম গ্রেডে ৯,৩০০ থেকে ২২,৪৯০ টাকা স্কেলে বেতন এবং সরকারি বিধি অনুসারে অন্যান্য সুবিধা পাবেন। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিটি ছাপা হয়েছে ৩১ আগস্ট বাংলাদেশ প্রতিদিনে। আবেদনের শেষ তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর।

আবেদনের যোগ্যতা

অষ্টম বা সমমানের পাস হলেই আবেদন করা যাবে বাস ও ট্রাকচালক (অপারেটর সি-গ্রেড) পদে। ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর। আবেদনকারীর বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ি চালনায় কমপক্ষে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। যানবাহনের প্রাথমিক মেরামত, রুটিন রক্ষণাবেক্ষণ ও খুচরা যন্ত্রাংশ সম্পর্কে জানাশোনা থাকতে হবে। থাকতে হবে পরিযানবিধি ও মহাসড়ক সম্পর্কে জ্ঞান।

আবেদন যেভাবে

আবেদন লিখতে হবে সাদা কাগজে হাতে বা কম্পিউটারে কম্পোজ করে। আবেদনপত্রে প্রার্থীর নাম, পিতা ও মাতার নাম, স্থায়ী ও

বর্তমান ঠিকানা (মোবাইল ও ফোন নম্বর উল্লেখসহ), জন্মতারিখ, শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্মনিবন্ধন সনদের নম্বর এবং অভিজ্ঞতা উল্লেখ করতে হবে। আবেদনের সঙ্গে সদ্য তোলা তিন কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি, জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্মনিবন্ধন সনদ, শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, অভিজ্ঞতার সনদ, ড্রাইভিং লাইসেন্সের দুই কপি ফটোকপি, প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা অথবা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বা পৌর মেয়র বা সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলরের দেওয়া চারিত্রিক সনদ ও নাগরিকত্ব সনদ যুক্ত করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা ও অন্যান্য কোটার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দেওয়া সনদ ও কাগজপত্র জমা দিতে হবে। সব সনদের ফটোকপি প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত হতে হবে। এ ছাড়া ‘চেয়ারম্যান, বিআরটিসি’ পরিবহন ভবন, ২১ রাজউক এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ বরাবর যেকোনো বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে ১০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট অথবা পে-অর্ডার যুক্ত করতে হবে। আবেদনপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর।

ডাক বা কুরিয়ারযোগে।

আবেদন পাঠানোর ঠিকানা : পরিচালক (প্রশাসন ও অপারেশন), বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি), পরিবহন ভবন, ২১ রাজউক এভিনিউ, ঢাকা-১০০০। খামের ওপর পদের নাম, জেলার নাম এবং কোটা থাকলে তা উল্লেখ করতে হবে।

সূত্র : কালের কণ্ঠ

"