আগামী ঈদের ছবির প্রস্তুতি

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

হাসান সাইদুল

ঈদ মানে আনন্দ। এই আনন্দের অনুষঙ্গ হিসেবে চলচ্চিত্রেরও ভূমিকা রয়েছে। তাই ঈদ মানেই নতুন ছবি নতুন আনন্দ। দেশের প্রেক্ষাগৃহে নতুন নতুন ছবি। বিভিন্ন অস্থিরতা কাটিয়ে এবার প্রস্তুতি চলছে আগামী ঈদে মুক্তি দেওয়ার জন্য রঙিন চলচ্চিত্র। মুক্তির জন্য আওয়াজ তুলেছে একাধিক ছবি। এর মধ্যে কিছু ছবির শুটিং শেষ হয়েছে। গেল রোজার ঈদে আন্দোলন সমালোচনার মুখেও মুক্তি পেয়েছিল যৌথ প্রযোজনার ছবি। আগামী ঈদেও দুটি যৌথ প্রযোজনার ছবি রয়েছে মুক্তির মিছিলে। ঈদুল ফিতর শেষ হলেও এখনো অনেক প্রেক্ষাগৃহে চলছে ঈদে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিগুলো। ছবি মুক্তির চেয়ে আন্দোলন আর কাদা ছোড়াছুড়িতেই ব্যস্ত এখনো চলচ্চিত্র শিল্পী ও কলা-কুশলীরা। এর মধ্যেও আসন্ন কোরবানির ঈদে মুক্তির জন্য প্রস্তুত বেশ কিছু ছবি। কিছু কিছু ছবির শুটিং চলছে এখনো। ঈদুল আজহায় ছবি মুক্তির ব্যাপারে বেশ হিসাব করেই পথ চলতে হচ্ছে পরিচালক ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোকে। বেশ কয়েক বছর ধরেই ঈদে রাজত্ব করে আসছে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবিগুলো। চলচ্চিত্র পরিবারের আন্দোলনের কারণে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবির বিষয়ে নতুন নীতিমালা ও নতুন প্রিভিউ কমিটি করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে। আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে যৌথ প্রযোজনায় ছবি নির্মাণ প্রক্রিয়া। বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক হারুন-অর-রশীদ কিছুটা হলেও আশার বাণী শুনিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘যৌথ প্রযোজনায় যে ছবিগুলোর আগে অনুমতি দেওয়া আছে সেগুলোর শুটিং চলবে। আর যেগুলোর শুটিং শেষ হয়েছে সেগুলো যথানিয়মেই মুক্তি পাবে।’ সেক্ষেত্রে যৌথ প্রযোজনার ছবি এবারো মুক্তি পাবে। তবে আসন্ন ঈদে ঠিক কয়টি ছবি মুক্তি পাবে এর নিশ্চিত হিসাব এখনো পাওয়া যায়নি। প্রতিযোগিতা করে হয়তো টিকে যাবে বেশ কয়েকটি ছবি। এবারের ঈদে মুক্তির জন্য প্রস্তুত ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে অহংকার, মনে রেখ, দুলাভাই জিন্দাবাদ এবং যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত নাম ঠিক না হওয়া একটি ছবিসহ রংবাজ ও নুরজাহান। রংবাজ, অহংকার এবং নাম ঠিক না হওয়া ছবির নায়ক শাকিব খান। চিত্রনায়িকা বুবলিকে নিয়ে শাকিব খানের আরেকটি ছবি হচ্ছে ‘অহংকার’। এটি একেবারে দেশীয় ছবি। পরিচালনা করেছেন শাহাদত হোসেন লিটন। শাকিব-বুবলি অভিনীত এটি তৃতীয় ছবি। কথা ছিল গেল বৈশাখে মুক্তি দেওয়া হবে ছবিটি। কিন্তু শুটিং শেষ না হওয়ায় সেটি সম্ভব হয়নি। এরপর ঈদুল ফিতরে মুক্তির আওয়াজ তুলে পরে জানানো হয়, দুই ঈদের মাঝামাঝি সময়ে মুক্তি দেওয়া হবে। শেষতক ঈদুল আজহায় মুক্তি দেওয়া হবে ছবিটি। ছবিটি ইতোমধ্যে সেন্সর সনদ পেয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্মাতা। ঈদে মুক্তির আওয়াজ তোলা আরো একটি ছবি হচ্ছে মাহি ও কলকাতার বনি অভিনীত ছবি ‘মনে রেখো’। এটি পরিচালনা করেছেন ওয়াজেদ আলী সুমন। ছবিটির শুটিং প্রায় শেষের পথে। মাত্র চারটি গান বাকি। এ চারটি গানের শুটিং নিয়েই বেধেছে বিপত্তি। যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘নুরজাহান’। বাংলাদেশের জাজ মাল্টিমিডিয়া ও কলকাতার পরিচালক রাজ চক্রবর্তীর প্রতিষ্ঠান রাজ চক্রবর্তী প্রোডাকশনসের ব্যানারে নির্মিত হচ্ছে ছবিটি। এ ছাড়া ছবিটির সহপ্রযোজক হিসেবে রয়েছে শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের নামও। ছবিটির বর্তমানে শুটিং চলছে। ঈদে মুক্তির জন্য প্রচারণায়ও নামতে দেখা গেছে। এ ছবিটিও ঈদে মুক্তির তালিকায় রয়েছে। এতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন কলকাতার নবাগত অভিনেতা আদৃত ও বাংলাদেশের পূজা চেরি। এ ছাড়া বাংলাদেশের আরাধনা এন্টারপ্রাইজ ও কলকাতার শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের যৌথ প্রযোজনায় নাম চূড়ান্ত না হওয়া একটি ছবিও রয়েছে ঈদে মুক্তির তালিকায়। এতে শাকিব খানের সঙ্গে অভিনয় করেছেন কলকাতার দুই নায়িকা সায়ন্তিকা ও নুসরাত জাহান। রাজিব বিশ্বাস পরিচালিত ছবিটির শুটিং এখন শেষের দিকে। এছাড়া ‘পাষাণ’ নামে আরো একটি ছবি রয়েছে মুক্তির তালিকায়। এতে কলকাতার ওমের বিপরীতে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের বিদ্যা সিনহা মিম। জানা গেছে, একটি গানের শুটিং বাকি থাকা সত্ত্বেও ছবিটি সেন্সরে জমা দেওয়া হয়েছে। এ ছবির নির্বাহী প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া। অন্যদিকে মনতাজুর রহমান আকবরের পরিচালনায় ডিপজলের নতুন ছবি ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ও ঈদে মুক্তির মিছিলে শামিল হয়েছে। এ ছবিতে ডিপজলের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন মৌসুমী। ছবির আরেক জুটি হচ্ছে বিদ্যা সিনহা মিম ও বাপ্পি।

"