বিবর্ণ জীবনে ফিরে আসুক রঙিন পালক

কুমার বিশ্বজিৎ

প্রকাশ : ০২ জুন ২০২০, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

গরবিনী মা শোভা রানী দের সন্তান বাংলাদেশের সংগীতাঙ্গনের জীবন্ত কিংবদন্তি চিরসবুজ গায়ক কুমার বিশ্বজিৎ। মায়ের অনুপ্রেরণায় এবং মায়েরই সর্বোচ্চ সহযোগিতায় কুমার বিশ^জিৎ নিজেকে আজকের অবস্থানে নিয়ে আসতে পেরেছিলেন। কিন্তু সেই মাকে ছাড়াই গতকাল জীবনের প্রথম জন্মদিনের সময়টা পার করছেন কুমার বিশ^জিৎ। শুধু এদিনই নয়, জীবনের বাকিটা সময় কুমার বিশ^জিৎকে মায়ের আশীর্বাদ ছাড়াই পার করতে হবে। কারণ মা তাকে ছেড়ে পরপারে চলে গেছেন গেল বছরের ১২ ডিসেম্বর।

তাছাড়া করোনার এই ক্রান্তিকালে চিরসবুজ এ গায়কের জন্মদিনে ছিল না কোনো উচ্ছ্বাস, কিংবা আনন্দ। অবশ্য কুমার বিশ^জিৎ জানান, কখনোই তার জন্মদিন নিয়ে বর্ণাঢ্য কোনো আয়োজন হতো না। আর এবার তো কোনো রকম আয়োজনের প্রশ্নই আসে না। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই কিংবদন্তি সংড়ীতশিল্পী তার জন্মদিন এবং করোনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘সারা বিশে^ করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের মধ্যে জীবন-জীবিকার প্রশ্নে এত বেশি দুশ্চিন্তা ও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে, সেখানে আমার জন্মদিনটি আসলে বড় বেশি গৌণ হয়ে যায়। সারা বিশে^র মানুষের মতো বাংলাদেশের মানুষও দুর্বিষহ সময় পার করছেন। আনন্দ উদ্যাপনের বিষয় এড়িয়ে মানুষ এখন জীবন-জীবিকা নিয়েই বেশি ব্যস্ত। করোনার সবচেয়ে বড় দিক হচ্ছে অসামাজিক হয়ে যাওয়া। অথচ জন্মদিন একটি সামাজিক বিষয়। সেই সামাজিকতার ন্যূনতমটুকুও করার চিন্তা করেনি। তাই দিনটি নিয়ে ভীষণভাবে ভাবিওনি। মাকে ছাড়া আমার জীবনের প্রথম জন্মদিন, এমনিতেও ভালো কাটেনি।

তিনি আরো বলেন, ‘আমি অনেক শ্রদ্ধা ও আন্তরিক ভালোবাসা জানাই করোনার এই ক্রান্তিকালে যারা সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করছেন। যেমন ডাক্তার, নার্স, সাংবাদিক, পুলিশ তথা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, বিভিন্ন সংগঠন, স্বেচ্ছাসেবী, পরিচ্ছন্নতাকর্মীসহ আরো যারা বিভিন্ন স্তরে কাজ করছেন। আজও যেমন শ্রদ্ধার সঙ্গে মহান মুক্তিযোদ্ধাদের জাতি স্মরণ করে। তেমনি আমার বিশ^াস, করোনাকালের এই সম্মুখযোদ্ধাদের জাতি নিশ্চয়ই মনে রাখবে। সবার মতো আমারও চাওয়া, আমাদের সামাজিক জীবনে স্বাভাবিকতা ফিরে আসুক, পৃথিবী সুস্থ হোক, শান্ত হোক। বিবর্ণ জীবনে ফিরে আসুক রঙিন পালক।’

এদিকে লকডাউনের এই দিনগুলোতেও কুমার বিশ^জিতের সার্বিক পরিকল্পনায় ও সুরে দুটি গান প্রকাশিত হয়েছে। গান দুটি লিখেছেন লিটন অধিকারী রিন্টু এবং সংগীতায়োজন করেছেন কিশোর। গান দুটির একটি হচ্ছে ‘লকডাউন’ এবং অন্যটি হচ্ছে ‘ঈদ আনন্দ’। কণ্ঠ দিয়েছেন নিশীতা, ইমরান, লিজা ও কিশোর।

 

"

সর্বাধিক পঠিত