ফোক ফেস্টের দ্বিতীয় দিন আজ

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

রাজধানীর আমি স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্টের পঞ্চম আসর। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এ উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আয়োজক প্রতিষ্ঠান সান ফাউন্ডেশন ও সান কমিউনিকেশনস লিমিটেডের চেয়ারম্যান অঞ্জন চৌধুরী।

এ আয়োজন শুরুর প্রথম দিন মঞ্চ মাতান বাংলাদেশের প্রেমা ও ভাবনা নৃত্যদল, জর্জিয়ার ফোক ব্যান্ড শেভেনেবুরেবি, বাংলাদেশের লোকসংগীতশিল্পী, গীতিকার ও সুরকার শাহ্ আলম সরকার ও ভারতের দালের মেহেন্দি।

আজ দ্বিতীয় দিন মঞ্চে থাকবেন বাংলা লোকগানের জনপ্রিয় শিল্পী কামরুজ্জামান রাব্বি। যিনি দোতারা বাজিয়ে লোকগান গেয়ে খুব কম সময়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। চাচা আবদুল জলিলের কাছ থেকে দোতারা বাজানো শেখেন রাব্বি। গান শেখেন রাজশাহীতে ওস্তাদ নিজামুল ইসলাম খানের কাছে। এরপরই মঞ্চে উঠবেন মাটির গান গেয়ে কৈশোরেই শ্রোতাদের মনে জায়গা করে নেওয়া শফিকুল ইসলাম। ২০১৬ সালে সান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত ‘বাউলিয়ানা’য় প্রথম রানারআপ হয়ে আলোচনায় আসেন শফিকুল। মূলত বাউল ও বিচ্ছেদি গান করলেও সব ধরনের গানেই পারদর্শিতা রয়েছে এই খুদে শিল্পীর। এদিন দর্শকের মন ভরাতে পারেন দেশীয় লোকসংগীতশিল্পী মালেক কাওয়াল। যিনি চার দশকের বেশি সময় ধরে কাওয়ালি গান গেয়ে আসছেন। যার গানে হাতেখড়ি গুরু মহীন কাওয়ালের কাছে। পরবর্তীতে তিনি ওস্তাদ মরহুম টুনু কাওয়ালের কাছে তালিম নিয়েছেন। কাওয়ালি গানের পাশাপাশি তিনি মাইজভান্ডারি গানেও পারদর্শী। চমক হিসেবে থাকছেন পাকিস্তানের হিনা নাসরুল্লাহ। যার সুরেলা কণ্ঠ দর্শকের কাছে বেশ জনপ্রিয়। তিনি মূলত সুফি ঘরানার গান করেন। ছোটবেলায় পাকিস্তানি টেলিভিশনে হামদ ও নাত পরিবেশনার মাধ্যমে তার সংগীতজীবন শুরু। বিশ্বের নানা প্রান্তে সুফি কনসার্টে সুরের মূর্ছনায় শ্রোতাদের মাতিয়ে

রেখেছেন তিনি। উর্দুর পাশাপাশি সিন্ধি এবং সারাইকি ভাষায়ও গান করে থাকেন হিনা নাসরুল্লাহ। এদিন দেশীয় শিল্পী হিসেবে দর্শক মাতাতে পারেন ফকির শাহাবুদ্দিন। বাংলাদেশের লোকসংগীত, বাউল ও সুফিগানের জনপ্রিয় শিল্পী তিনি। পাশাপাশি একজন গীতিকার, সুরকার ও সংগীত গবেষকও বটে। লোকগানের কিংবদন্তি শাহ আবদুল করিমের সান্নিধ্যে আসার পর বাউল গানের দিকে ঝুঁকে পড়েন ফকির শাহাবুদ্দিন। তিন দশকের বেশি সময় ধরে বাউলসংগীতে জড়িত তিনি। এ পর্যন্ত ৭টি একক অ্যালবাম এবং বেশ কয়েকটি যৌথ অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে তার। ফকির শাহাবুদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে বাউলগান নিয়ে গবেষণা করছেন, গ্রামে গ্রামে ঘুরে সংগ্রহ করেছেন প্রায় ৪০ থেকে ৪৫ হাজার বাউলগান। দ্বিতীয় দিনের সর্বশেষ শিল্পী মালির হাবিব কইটে অ্যান্ড বামাদা। মালিয়ান লোকসংগীতের জীবন্ত কিংবদন্তি হাবিব কইটে। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে তার প্রথম অ্যালবাম ‘মুসো কো’ দিয়ে বিশ্বব্যাপী সংগীতপ্রেমীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এরপর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। তিনি দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে ভিন্নধর্মী গিটারবাদন এবং গায়কি দিয়ে শ্রোতাদের মাতিয়ে রেখেছেন। ১৯৯৪ সাল থেকে তিনি নিজের ব্যান্ড বামাদাকে নিয়ে প্রায় ১৭০০ কনসার্টে গান করেছেন, পারফর্ম করেছেন বিশ্বের সবচেয়ে বড় বড় মঞ্চে। তার পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শেষ হবে ফোক ফেস্টের দ্বিতীয় দিনের আয়োজন।

"