বিশ্বাস ছিল...

প্রকাশ : ২৩ মে ২০১৯, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

কিছুদিন আগের কথা, এ টি এম শামসুজ্জামানের সঙ্গে এস এ হক অলিক পরিচালিত ‘জায়গীর মাস্টার’ ধারাবাহিক নাটকের শুটিং করছিলেন অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে একুশে পদকপ্রাপ্ত গুণী এই অভিনেতার সঙ্গে নানা ধরনের গল্পে মেতে উঠতেন অপূর্ব। এরই মধ্যে গেল এপ্রিলে এ টি এম শামসুজ্জামান ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েন। অনেকের মতো স্বাভাবিকভাবেই অপূর্বও মন খারাপ হয়ে যায়। কারণ এ টি এম শামসুজ্জামান শুধুই অপূর্বর একজন সহশিল্পীই নন, তার একজন অভিভাবক হিসেবেও মনে করেন অপূর্ব। অপূর্বর বিশ^াস ছিল, আমাদের সবার মাঝে এ টি এম শামসুজ্জামান সুস্থ হয়ে নিশ্চয়ই ফিরবেন। সবার মনের দোয়া আল্লাহ কবুল করেছেন। তাই এখন এ টি এম শামসুজ্জামান বেশ সুস্থ আছেন। লাইফ সাপোর্ট খুলে দেওয়ার পর তিনি বর্তমানে রাজধানীর পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালের কেবিনে আছেন। খবরটি শোনার পর অপূর্বর মধ্যেও এক অন্যরকম প্রশান্তি বয়ে যায়। অপূর্ব বলেন, ‘এ টি এম আঙ্কেল আমার অনেক প্রিয় একজন অভিনেতা। তবে এর বাইরে তিনি আমার একজন অভিভাবকও বটে। আমাকে তিনি ভীষণ স্নেহ করেন, এটা আমার পরম সৌভাগ্য। তিনি আমাদের সত্যিকারের একজন কিংবদন্তি শিল্পী। তার সঙ্গে যতটুকু সময় আমি কাটাই, মনে হয় জীবনের অন্যতম সেরা সময় কাটাচ্ছি। জায়গীর মাস্টার নাটকে আমরা অনেক মজা করে শুটিং করেছি। শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে তার কাছে শোনা নানা ধরনের গল্প আমাকে অভিনয়ে সমৃদ্ধ করেছে। এত বড় মাপের একজন অভিনেতা হয়েও তিনি যে কত সাধারণ একজন মানুষ, তা ভাবাই যায় না।’

তিনি আরো বলেন, ‘হাসপাতালে তিনি যখন মুমূর্ষু অবস্থায়, তখন মহান আল্লাহর কাছে অনেক দোয়া করেছি। আমার বিশ^াস ছিল তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন এবং আল্লাহ তাই করেছেন। এ টি এম আঙ্কেল এখন অনেকটাই সুস্থ এবং আমার বিশ^াস আমরা আবার একসঙ্গে কাজ করতে করব। সেদিনের অপেক্ষায় আছি। পরিশেষে একটি কথাই বলব, আঙ্কেল আপনাকে আমরা অনেক অনেক ভালোবাসি। আপনি আমাদের দেশের গর্ব।’

উল্লেখ্য, জায়গীর মাস্টার ধারাবাহিকটি প্রতি বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে বাংলাভিশনে নিয়মিতভাবে প্রচার হচ্ছে।

 

"