চলচ্চিত্রের জন্য হতাশার কথা

এপ্রিলে বন্ধ হচ্ছে সিনেমা হল

* ১২৩৫ থেকে বর্তমানে সিনেমা হল ১৭৪ * বছরে সিনেমা নির্মাণ হচ্ছে ৩৫-৪০টি

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

দেশীয় কন্টেন্টের অভাব এবং ভারতীয় সিনেমা আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় আগামী ১২ এপ্রিল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের সব সিনেমা হল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চলচ্চিত্র প্রদর্শক ও হল মালিক সমিতি। গতকাল সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান প্রদর্শক সমিতির নেতারা।

এ বিষয়ে প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, সিনেমা হল টিকিয়ে রাখার জন্য পর্যাপ্ত সিনেমা নেই। দীর্ঘদিন ধরে লোকসান গুনতে গুনতে হলের মালিকরা দিশাহারা হয়ে পড়েছেন। এসব বিষয়ে তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করেও তেমন কোনো সুরাহা হয়নি। সে জন্য ১২ এপ্রিল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের সব সিনেমা হল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বছরের প্রথম দুই মাসে কোনো চলচ্চিত্র মুক্তি পায়নি। পরে যা পাচ্ছে তা দর্শক টানতে ব্যর্থ হয়েছে। মূলত বিগত ৩ মাসে কোনো কোয়ালিটিফুল ছবি মুক্তি পায়নি বলে দাবি করছেন এ নেতা। এতে বর্তমানে হলগুলো মোটামুটি অচল অবস্থায় আছে বলেও জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে প্রদর্শক সমিতির পক্ষ থেকে দুই উপদেষ্টা সুদীপ্ত দাস ও মিয়া আলাউদ্দিন জানান, দুরাবস্থা কাটাতে দায়িত্বশীলদের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করা হয়েছে। কিন্তু তারা সুনির্দিষ্ট সিনেমা হলগুলোকে বাঁচানোর কিংবা দেশের ছবির উৎপাদন বাড়ানোর এবং উপমহাদেশের ছবি আমদানির বাধানিষেধ অপসারণে কোনো কার্যকর পথ নির্দেশ দেয়নি। তাই আমাদের সংগঠনের এ সিদ্ধান্ত।

এদিকে প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ স্বাক্ষরিত সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, দেশের সিনেমা হল ১২৩৫ থেকে বর্তমানে ১৭৪-এ নেমেছ। দেশের ছবি নির্মাণের সংখ্যা বছরে ৩৫-৪০-এ এসে ঠেকেছে। এ বিষয়ে সরকার যদি নজর না দেয়, এ অবস্থা চলতে থাকবে বলেও হুশিয়ারি দিয়েছেন চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির নেতারা।

তবে নেতারা জানিয়েছেন, দেশের সব হল এ নির্দেশনার অন্তর্ভুক্ত থাকলেও স্টার

সিনেপ্লেক্স ও যমুনা ব্লকবাস্টার এ নির্দেশনার অন্তর্ভুক্ত নয়।

 

"