মিমের নিমন্ত্রণে তারার মেলা

প্রকাশ | ১৪ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

২০১৪ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে প্রয়াত খালিদ মাহমুদ মিঠু পরিচালিত ‘জোনাকীর আলো’ সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন বিদ্যা সিনহা সাহা মিম। সেই জাতীয় পুরস্কার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে মিম গ্রহণ করেন ২০১৬ সালের ১১ মে। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জনে সেই সময় উচ্ছ্বসিত হয়ে রাজধানীর একটি অভিজাত রেস্তোরাঁয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্তির সেলিব্রেশন করেছিলেন মিম। কিন্তু সেই সময় দীর্ঘদিনের পথচলায় সহশিল্পীদের নিয়ে তেমন কোনো আয়োজন করতে পারেননি।

দেখতে দেখতে দুই বছরেরও বেশি সময় চলে যায়। রাজধানীর নিকেতন ছেড়ে মিম বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার নতুন বাসাতেও উঠেছেন গত বছর। তাই নতুন বছরের শুরুতে প্রিয় সহকর্মী আর কিছু কাছের মানুষের সঙ্গে নিয়ে এক ঘরোয়া আড্ডায় মেতে উঠেছিলেন মিম। গত শনিবার সন্ধ্যা থেকে রাত অবধি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার আই ব্লকে এ নিমন্ত্রণে সবার আগে মিমকে শুভেচ্ছা জানাতে এবং আড্ডায় মেতে উঠতে উপস্থিত হয়েছিলেন লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার আজমেরী হক বাঁধন। এর পরপরই উপস্থিত হন সফল তারকা দম্পতি ওমর সানী-মৌসুমী। এরপর একে একে উপস্থিত হন নন্দিত নাট্যাভিনেত্রী রুমানা রশীদ ঈশিতা, চিত্রনায়ক আরিফিন শুভ, চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা, জনপ্রিয় অভিনেতা-নির্দেশক জাহিদ হাসান, জাজ’-এর কর্ণধার আবদুল আজিজ, কোরিওগ্রাফার তানজিল ও তার স্ত্রী লামিয়া, উপস্থাপিকা ফারহানা নিশো, চিত্রনায়িকা পপি, চিত্রনায়ক ফেরদৌস, চিত্রনায়ক ইমন, বাপ্পী, কোরিওগ্রাফার ইভান শাহরিয়ার সোহাগ, ফ্যাশন ডিজাইনার রামিম।

মিমের নতুন বাসায় এসে সব তারকারাই তার সুন্দর সাজানো, পরিপাটি বাসার ভূয়সী প্রশংসা করেন। চিত্রনায়ক ওমর সানী বলেন, নিজেদের মতো কিছুটা সময় কাটালাম মিমের বাসায়। সবার সঙ্গে গল্প, আড্ডায় দারুণ সময় কেটেছে। মিম নিজের মতো করে নিজের বাসাটি সাজিয়েছে। ও তো আমাদেরই ছোটবোন। সব সময়ই দোয়া করি আল্লাহ যেন তাকে ভালো রাখেন।

জাহিদ হাসান বলেন, মিম তো আমারই ছোট বোন। সে ভালো থাকলেই আমরা ভালো থাকব। কারণ দিন শেষে তো আমরা একটি পরিবার। তাই পরিবারের সব মানুষ যেন ভালো থাকে এটাই আমাদের কামনা। চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা বলেন, মিম খুব লক্ষ্মী একটি মেয়ে। তাকে আমি ভীষণ পছন্দ করি। তার এই আয়োজনে অংশ নিতে পেরে আমার ভীষণ ভালো লেগেছে। দোয়া করি সে ভালো থাকুক সব সময়।

মিমের আয়োজনকে সফল করতে গত

শনিবার সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত কষ্ট করেছেন মিমের বাবা বীরেন্দ্রনাথ সাহা ও তার মা ছবি সাহা।

"