এক বছর পর মঞ্চে প্রাচ্যনাটের ‘কইন্যা’

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে আগামীকাল সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চস্ত হবে প্রাচ্যনাটের প্রযোজনায় নাটক ‘কইন্যা’। প্রায় এক বছর পর নাটকটি আবার মঞ্চস্থ হতে যাচ্ছে। মুরাদ খানের রচনায় নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন আজাদ আবুল কালাম। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করবেন আজাদ আবুল কালাম, ঋতু সাত্তার, শাহানা রহমান সুমি, শতাব্দী ওয়াদুদ, সানজিদা প্রীতি, শাহেদ আলী সুজন, তৌফিকুল ইসলাম ইমন, তপন মজুমদার, হোসেন রেজভী, জাহাঙ্গীর আলম, জবা, রুবেল, সজীব, মিতুল, সোহেলসহ অনেকে। মঞ্চ ও আলোক নির্দেশনায় রয়েছেন মো. সাইফুল ইসলাম। সংগীত পরিকল্পনায় থাকছেন রাহুল আনন্দ ও পোশাক পরিকল্পনায় আছেন কাজী তৌফিকুল ইসলাম ইমন।

নাটকটির গল্পে দেখা যাবে, ‘কালারুকা’ নামের জনপদের মানুষ মনে করে ‘কইন্যাপীর’ তাদের দেখে রাখেন। কইন্যাপীর সেই কবে এসেছিলেন এই কালারুকায়; গত হয়েছেন তা-ও যুগ যুগ আগে, তবুও এমন বিশ্বাস বর্তমান, তার সাথি ‘বহুরূপী’কে তিনি রেখে যান খালি বাড়ির এক পুকুরে মাছ রূপে। খালি বাড়িতে এখন থাকেন নাইওর ও দিলবর দুই ভাই। জনপদের সবাই জানেন, বিপতœীক নাইওরের ওপর কইন্যাপীরের ভর আছে। ইশকে মাতোয়ারা নাইওর ঘণ্টার পর ঘণ্টা কথা বলেন বহুরূপীর সঙ্গে, যেন বহুরূপীর কাছে নিজেকে জানার দীক্ষা নেন, এই খালি বাড়িতে আশ্রিত মেছাব, নাইওরের ছোট ভাই দিলবরের সঙ্গে বিয়ের আয়োজন করে নিজ গ্রামের এক কইন্যার, যাকে সে নিজেই একসময় বিয়ের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়, যার প্রতি এখনো রয়েছে তার আসক্তি। যৌনতার ভিন্ন ভাবনায় সে রাজি করায় বিয়েতে হরিরামপুরের এক মৌলভী সাহেবজাদার বানানো ওষুধের কথা বলে, কইন্যার আগমন ঘটে কালারুকায়। চেঙ্গের খালে পশ্চিমপারের মৌলভী সাহেবজাদার ধর্মচিন্তা পূর্বপারে কালারুকার ধর্মচিন্তা থেকে আলাদা, তিনি চান কালারুকায় প্রভুত্ব প্রতিষ্ঠা করতে। অপূর্ণ কইন্যাও একসময় আত্মিক নিঃসঙ্গতা ঘোচাতে ইশকে মজে বহুরূপীর সঙ্গে। বহুরূপী রূপ বদলায়, ‘কইন্যা’ ধরতে পারে না কে সে? এরই মধ্যে সে টের পায় নিজের দেহে অন্য দেহের উপস্থিতি। এভাবেই এগিয়ে যাবে নাটকটির গল্প। উল্লেখ্য, নাটকটিতে বৃহত্তর সিলেটের আঞ্চলিকতানির্ভর একটি নাট্যভাষা প্রয়োগের চেষ্টা করা হয়েছে।

"