মায়াবতীতে তিশার মা তিনি

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

সিনেমার নন্দিত অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাস। তবে বর্তমানে শুধু সিনেমাতেই নয়, বরং টিভি নাটকেও রয়েছে তার সরব উপস্থিতি। বিশেষ দিবসে তিনি নাটকও নির্মাণ করেন। তবে নতুন বছরে তিনি অরুণ চৌধুরীর নতুন সিনেমা ‘মায়বতী’তে অভিনয় করেছেন। এই সিনেমায় তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী নূসরাত ইমরোজ তিশার মায়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন। এরই মধ্যে তিনি এই সিনেমার কাজ প্রায় শেষ করেছেন। অরুণ চৌধুরীর নিদের্শনায় এর আগে অরুণা বিশ্বাস একটি নাটকে অভিনয় করেছিলেন। সিনেমায় তিনি এবারই প্রথম কাজ করেছেন। কেমন লাগল অরুণ চৌধুরীর নির্দেশনায় কাজ করতে? জবাবে অরুণা বিশ্বাস বলেন, ‘আমি যতটুকু কাজ করেছি ততটুক তো ভালো হয়েছেই, তবে বাকিটুকু কেমন হয়েছে তা বলতে পারব না। অরুণ দা তো গুছিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেন। তবে সিনেমাতে এখন কাজ করতে গিয়ে আমার বারবার একটি কথাই মনে হয়, সিনেমার গল্পের গবেষণা হওয়াটা খুব জরুরি। তাহলে আমরা আরো অনেক ভালো গল্প দর্শককে উপহার দিতে পারতাম।’

এদিকে অরুণা বিশ্বাস জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী। কেন আপনি সংরক্ষিত আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী? এমন প্রশ্নের জবাবে অরুণা বিশ্বাস বলেন, ‘আমার পরিবার বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পরিবার। আমরা সঠিক ইতিহাস জেনেই বেড়ে উঠেছি। আমি মনে করি, আমার বয়স, লেখাপড়া ও পারিবারিক ঐতিহ্য নিয়ে এ মুহূর্তে আমি দেশসেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে সক্ষম। আমি দেশের জন্য কাজ করতে আন্তরিকভাবেই প্রস্তুত। প্রধানমন্ত্রী যদি আমাকে দেশের মানুষের সেবা করার সেই পথ তৈরি করে দেন, তাহলে সেটা হবে জীবনের অন্যতম অর্জন।’ সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গেল ৮ জানুয়ারি দেখা হয়েছে অরুণা বিশ্বাসের। প্রধানমন্ত্রী সহাস্যে তার সঙ্গে কথা বলেছেন। গেল বিজয় দিবসে অরুণা বিশ্বাস হাবিব শাকিলের নির্দেশনায় ‘বাবা আসবেন’ নাটকে অভিনয় করেছেন। এটি এনটিভিতে প্রচার হয়। এ ছাড়াও বিজয় দিবসে তার নির্দেশনায় ‘জয়নব বিবি’ নাটকটি চ্যানেলে আইতে প্রচার হয়। এতেও তিনি নাম ভূমিকায় অভিনয় করেন। ১৯৭১ সালে যখন মুক্তিযুদ্ধ চলছিল সেই সময় চিত্রনায়িকা অরুণা বিশ্বাস টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের ভারতেশ্বরী হোমসের ছাত্রী ছিলেন। সেই সময় হোমসের প্রধান শিক্ষিকা ছিলেন প্রতিভা মুৎসুদ্দী। তিনি এখন অবসরপ্রাপ্ত একজন শিক্ষক হিসেবে কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টে কর্মরত আছেন। তার কাছেই তারই শিক্ষার্থী অরুণা বিশ্বাস মুক্তিযুদ্ধের গল্প শুনতে গিয়েছিলেন বিজয়ের মাসে।

"