একজন শিরীন আলমের গল্প...

প্রকাশ : ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

বিনোদন প্রতিবেদক

মঞ্চের আঙ্গিনা থেকে ছোট পর্দায়, তারপর তার ব্যস্ততা ছিল চলচ্চিত্রে। এভাবে একটু একটু করে অভিনয়ের আঙ্গিনায় শিরীন আলম তার চরিত্রগুলোয় অভিনয়ের মধ্য দিয়ে বহুমাত্রিক চরিত্রে নিজেকে যোগ্য করে তুলেছেন বিগত দেড় যুগে। এখন অভিনয়ই তার পেশা। ২০০০ সাল থেকে তিনি টিভি নাটকে নিয়মিত অভিনয় করছেন। অবশ্য তার আগে তিনি ‘পদধ্বনি’ নাট্যদলের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন দশ বছর এবং ‘নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়’র সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন এক বছর। ‘পদধ্বনি’র হয়ে তিনি ‘মামা মন্ত্রী হবেন’ এবং ‘বাবার বিয়ে’ নাটকে অভিনয় করেছেন। মোমিনুর রশীদ মিল্লাতের নির্দেশনায় তিনি প্রথম ‘অভিশাপ’ নাটকে অভিনয় করেন। সেই থেকেই টিভি নাটকে তার পথচলা শুরু। এরপর তিনি আবদুল্লাহ আল মামুনের নির্দেশনায় ‘বাবা’, ‘সংসার’, ‘জোয়ার ভাটা’সহ আরো বহু নাটকে অভিনয় করেন। জাহিদ হাসানের নির্দেশনায় ‘লাল নীল বেগুনী’ ধারাবাহিকে অভিনয় করেও তিনি আলোচনায় ছিলেন। আবুল হায়াতের নির্দেশনায় তিনি প্রথম অভিনয় করেন কাজী নজরুল ইসলামের ‘ঝিলিমিলি’ নাটকে। এরপর একই পরিচালকের নির্দেশনায় বহু নাটকে অভিনয় করেছেন তিনি। সালাহ উদ্দিন লাভলুর ‘ঘরকুটুম’, ‘ঢোলের বাদ্য’, ‘হাড়কিপ্টে’, ‘শিলবাড়ি’ নাটকে অভিনয় করেও দারুণ প্রশংসিত হয়েছেন শিরীন আলম। তারিকুল ইসলামের ‘গাঁও গেরামের মানুষজন’ ধারাবাহিকে অভিনয় করেও প্রশংসিত হন শিরীন আলম। শিরীন আলম এই মুহূর্তে বেশ কয়েকটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেছেন। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে সৈয়দ শাকিলের ‘প্রেম নগর’, ‘সঞ্জিত সরকারের ‘মজনু একজন পাগল নহে’, আশীষ রায়ের ‘ভালোবাসার রং’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেও প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। তৌকীর আহমেদের ‘দারুচিনি দ্বীপ’, গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘মনপুরা’, চাষী নজরুল ইসলামের ‘শাস্তি’, শাহীন সুমনের ‘লাভ ম্যারেজ’, অনন্য মামুনের ‘ভালোবাসার গল্প’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি।

এদিকে অভিনয়কে পেশা হিসেবে নিয়ে দারুণ তৃপ্ত তিনি। এ নিয়ে শিরীন আলম বলেন, কখনোই মনে হয়নি যে অভিনয়কে পেশা হিসেবে নিয়ে ভুল করেছি। সবার ভাগ্যে অভিনয় করার সুযোগ হয়ে উঠে না। আল্লাহর অশেষ রহমতে এবং সবার সহযোগিতায় আমি অভিনেত্রী হতে পেরেছি, এটা আমার জন্য অনেক বড় পাওয়া। সাধারণ মানুষের ভালোবাসার আমি মুগ্ধ হই সব সময়। অভিনয় করে তাদের ভালোবাসা প্রতিনিয়তই পাই আমি। একজন সাধারণ মানুষ হলে এটা সম্ভব ছিল না। আমি আমৃত্যু অভিনয় করে যেতে চাই।

"