মাশরাফির প্রচারণায় মাঠে ৬৮টি স্পোর্টস ক্লাব ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা

প্রকাশ : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নড়াইল প্রতিনিধি
ama ami

ক্রিকেট তারকা মাশরাফির পক্ষে নড়াইলের ৬৮টি স্পোর্টস ক্লাব ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা নিজ খরচে তার নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় মাঠে নেমেছেন। জেলা ক্রীড়া সংস্থার অধীন এসব ক্লাবের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজ নিজ খরচে বিভিন্ন এলাকায় মাশরাফির পক্ষে নৌকা মার্কায় ভোট চাচ্ছেন।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান মিকু বলেন, প্রধানমন্ত্রী মাশরাফিকে মনোনয়ন দিয়ে নড়াইল ও ক্রীড়াঙ্গনকে সম্মানিত করেছেন। এজন্য জেলা ক্রীড়া সংস্থার অধীনে সব ক্লাব দলমত নির্বিশেষে মাশরাফিকে বিজয়ী করতে মাঠে নেমেছেন। তারা নিজ খরচে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন।

এদিকে নড়াইল কাঁচাবাজারের ছোট্ট একটি হোটেলের মালিক ইসহাক হোসেন। তিনি ও তার তিন কর্মচারী হোটেলের কাজ সামাল দিয়ে নিজ খরচে বাঁশের কঞ্চি দিয়ে নৌকার কাঠামো তৈরি করে লাল-সবুজ কাপড় বসিয়ে এবং সেলাই করে তৈরি করছেন ছোট ছোট নৌকা।

তিনি জানান, মাশরাফি আমাদের বস। সে নৌকা মার্কা নিয়ে দাঁড়িয়েছে। এমন সুযোগ আর পাব না, ব্যবসা-টাকা এগুলো বেঁচে থাকলে পরেও পাওয়া যাবে।

শহরের মহিষখোলা কাঁচাবাজারের ফল বিক্রেতা মাশরাফি ভক্ত মন্নু মোল্যা ব্যবসার সময় কমিয়ে দিয়ে সারা দিন মাশরাফির লিফলেট বিলি করছেন পাড়ায়-মহল্লায় আর বাসস্ট্যান্ডে। এ ছোট ব্যবসায়ী মাশরাফি মনোনয়ন পাওয়ার পর দুই দিন মানুষকে ফ্রি আপেল ও কমলা লেবু খাইয়েছেন বলে জানা গেছে। মহিষখোলার সবজি বিক্রেতা মোবারক মোল্যা ও মুদি দোকানি সাইদুল ইসলাম তাদের ব্যবসার সময় কমিয়ে মাশরাফির জন্য ভোট প্রার্থনা করছেন।

জেলা ইজিবাইক শ্রমিক সমিতির সভাপতি লায়েব আলী একটি মোটরসাইকেলে নিজ খরচে নৌকা মার্কা স্থাপন করে তাতে লাইট জ্বালিয়ে সারা দিন ঘুরে ঘুরে ভোট প্রার্থনা করে বেড়াচ্ছেন। তিনি বলেন, সব ইজিবাইক চালক মাশরাফির জন্য নিজ খরচে প্রচার চালাচ্ছেন। আমাদের সোনার ছেলের জন্য করব না তো কার জন্য করব।

এদিকে নড়াইল-২ (সদরের একাংশ ও লোহাগড়া) আসনে মহাজোটের প্রার্থী মাশরাফি খেলার মাঠে থাকলেও হাজারো মাশরাফি ভক্ত তাকে নির্বাচনে জয়ী করতে ভোটের মাঠে রয়েছেন। এর সঙ্গে রয়েছেন বিপুল সংখ্যক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মন্তব্য ক্রিকেট মাঠে মাশরাফি লড়ছেন দেশের জন্য। আর হাজারো নেতাকর্মী ভোটের মাঠে লড়ছেন মাশরাফির জন্য। মাশরাফি ভক্তরা জানান, মাশরাফি খেলার মাঠে থাকলেও সর্বদা আছেন ‘নড়াইলবাসীর হৃদয়ে’। তিনি যেমন বাংলাদেশকে জিতিয়েছেন আমরা তাকে বিপুল ভোটে জেতাবো।

মাশরাফির ছোটবেলার বন্ধু সুমন দাস বলেন, নড়াইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের ১৯৯৮ ও ১৯৯৯ সালের এসএসসি ব্যাচের বন্ধুরা ছাড়াও কলেজ পড়–য়া এবং তরুণ সমাজ মাশরাফির জন্য বিভিন্ন এলাকায় স্বতস্ফুর্তভাবে কাজ করছে। এ লক্ষে প্রতিদিন দুপুর থেকে রাত অবধি বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন পেশার মানুষের সঙ্গে মাশরাফির পক্ষে মতবিনিময়, গণসংযোগ, লিফলেট বিতরন করেছে তারা। মাশরাফি খেলার মাঠে থাকলেও প্রচার প্রচারনা থেমে নেই বলে জানান তিনি।

মাশরাফির বাবা গোলাম মর্তুজা স্বপন জানান, চলতি মাসের ১৬-১৭ তারিখে নড়াইলে আসতে পারে মাশরাফি। এবার নড়াইলে এসে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় থাকবেন বলে জানান। নড়াইল-২ (সদর ও লোহাগড়া) আসনে মাশরাফি বিন মর্তুজার নৌকা প্রতিকের সাথে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে ২০ দলীয় জোটের শরিক ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান এ জেড এম ফরিদুজ্জামানের ধানের শীষের প্রতিকের। এ আসনে মোট সাতজন প্রার্থী বিভিন্ন প্রতীকে নির্বাচন করছেন।

 

"