মনোহরগঞ্জে উন্নয়ন : বাইশগাঁও ইউনিয়ন

শিক্ষা ও যোগাযোগ অবকাঠামো খাতে বিপুল উন্নয়ন

প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আকবর হোসেন, মনোহরগঞ্জ (কুমিল্লা)

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার মতো ইউনিয়নেও দৃশ্যমান হয়েছে উন্নয়ন কর্মকান্ড। উপজেলার ১নং বাইশগাঁও ইউনিয়নে পাকা রাস্তার সম্প্রসারণ, বিদ্যুতায়ন, বাজার অবকাঠামো উন্নয়ন, হতদরিদ্রদের আবাসন ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা দানে সন্তোস প্রকাশ করেছে ইউনিয়নবাসী। ইউনিয়নের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে লেগেছে উন্নয়নেও ছোঁয়া। সরকারি সহযোগিতায় ছাড়াও নিজস্ব অর্থায়নের নির্মিত হয়েছে একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শিগগিরই বাইশগাঁও ইউনিয়নকে শতভাগ বিদ্যুতায়ন ঘোষণা করা হবে জানা গেছে।

কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসন থেকে চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম এমপির আন্তরিকতায় ওই ইউনিয়নের উন্নয়ন কর্মকা- হয়েছে। তিনি বিদ্যুৎ-জ্বালানি ও সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি সদস্য।

বাইশগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, বর্তমান সরকারের আমলে ইউনিয়নের অধিকাংশ উন্নয়ন কর্ম এরই মধ্যে শেষ হয়ে গেছে। চলমান কিছু উন্নয়ন কর্মকা- এখন সমাপ্তির পথে। ইউনিয়নে কর্মসৃজন প্রকল্পের আওতায় ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজ ৯টি ওয়ার্ডের মধ্যে সমাপ্তি হয়েছে। এদিকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বিভিন্ন ১২৮ জনকে প্রতিবন্ধীভাতা, ৬০৮ জনকে বয়স্কভাতা, ১৮২ জনকে বিধবাভাতা, ১৪৫ জনকে ভিজিডি, ১০ টাকা কেজিতে চাল বিতরণসহ বহু কর্মকান্ড পরিচালনা করা হচ্ছে।

ইউনিয়নের বিদ্যালয়গুলো ঘুরে দেখা গেছে, দূর্গাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মান্দারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন পুকুরে গার্ডওয়াল নির্মাণ করা হয়েছে। একইভাবে বিদ্যালয়ের পেছনে গাইড ওয়াল নির্মাণসহ সম্প্রসারণ করা হয়েছে দূর্গাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন। ইউনিয়নের শাকতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাইশগাঁও পশ্চিম প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাইশগাঁও পূর্ব প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাওরা প্রাথমিক বিদ্যালয়, শরীফপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়, বুরপৃষ্ট প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা হয়েছে নতুন ভবন। এছাড়া জলিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মান্দারগাঁও উচ্চবিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণসহ ভরাট করা হয়েছে খেলার মাঠ। একইভাবে উন্নয়ন হয়েছে পঞ্চগ্রাম স্কুল অ্যান্ড কলেজে। ভরাট করা হয়েছে দাদঘর কেয়ারী দাখিল মাদরাসার মাঠ। এছাড়া কুমিল্লা জেলা পরিষদ থেকে মান্দারগাঁও উচ্চবিদ্যালয়ের গেট ও ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে।

এদিকে ইউনিয়নের চড্ডা গ্রাম থেকে মান্দারগাঁও হয়ে হাসনাবাদ, বাইশগাঁও থেকে হাসনাবাদ, বাইশগাঁও থেকে বাতাবাড়িয়া, বুরপৃষ্ট থেকে শরীফপুর, দাদঘর থেকে তালতলা, ফুলপুকুরিয়া গ্রাম থেকে খরখরিয়া ব্রিজ, জলিপুর থেকে ডাবুরিয়া ও মান্দারগাঁও সড়ক পাকাকরণ করা হয়েছে। লাচরা ও চিলুয়া গ্রামের ভেতরে একটি করে এবং উদাইশ থেকে বাইশগাঁও, কেয়ারী থেকে বাইশগাঁও পর্যন্ত একটি নতুন পাকা রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। চলমান আছে শাকতলা গ্রামের ভেতর ও জলিপুর থেকে বুরপৃষ্ঠ বাজার পর্যন্ত পাকা রাস্তার কাজ।

এছাড়া দূর্গাপুর থেকে ফুলপুকুরিয়া হয়ে খরখরিয়া গ্রাম পর্যন্ত ডাকাতিয়া নদীর পাশে একটি নতুন পাকা রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া ইউনিয়নের চড্ডা ও হাওরা গ্রামের মাঝে মোট ২টি, দাদঘর ও চিলুয়া গ্রামের ভিতরে একটি করে নতুন সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। মান্দারগাঁও বাজারসহ ফুলপুকুরিয়া ব্রিজের পাশে ল্যাম্পপোস্ট বসানো হয়েছে।

এদিকে মান্দারগাঁও বাজারে ইটের সলিং ও কাঁচামাল ব্যবসায়ীদের জন্য স্লাব নির্মাণ, বুরপৃষ্ট বাজার সংলগ্ন একটি কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনসহ বাইশগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের ও বাইশগাঁও মসজিদ সংলগ্ন পুকুরের পাশে গার্ডওয়ালের নির্মাণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় অসহায়দের জন্য বাইশগাঁও ইউনিয়নে ৯টি ওয়ার্ডে মোটি ১৮টি বসতঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। বাইশগাঁও ইউনিয়নে বিভিন্ন মসজিদ ও মাদরাসা উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য বিভিন্ন বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে।

বাইশগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন বিএসসি বলেন, ইউনিয়নের উন্নয়নের আমাদের এমপি মো. তাজুল ইসলাম সব সময়ই আন্তরিক। দীর্ঘদিন থেকে তিনি আমাদের এমপি। আগামীও তিনি এমপি থাকলে আমাদের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে। এ সময় ইউনিয়নে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন হওয়ায় মো. তাজুল ইসলাম ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা কামনা করেন ইউনিয়নের এলাকার জনগণ।

"