গুজব নয়, সচেতনতা বাড়াতে হবে

প্রকাশ : ০১ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

করোনা সংকটে শঙ্কাগ্রস্ত পুরো বিশ্ব। প্রতিদিনই বাড়ছে আসক্তের সংখ্যা। দীর্ঘতর হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল, যার ভয়াবহতার আঁচড় লেগেছে বাংলাদেশেও। তবে সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্তের কারণে তা এখনো নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা মোকাবিলায় প্রতি মুহূর্তে যেভাবে জাতিকে নির্দেশনা ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন, তা আমাদের জন্য বিশাল প্রাপ্তি। কিন্তু এ সংকটে মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে বিবেকহীন একটি চক্র উঠে পড়ে লেগেছে গুজব ছড়ানোর কাজে। চক্রটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে গুজব ও ভুয়া খবর। এতে বিভ্রান্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এ ধরনের অভিযোগে রাজধানীতে ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে। এ সময় আটকদের কাছ থেকে লিফলেট ও তাদের বহনকারী একটি পিকআপভ্যান জব্দ করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ত্বরিত তৎপরতায় আমরা স্বস্তিবোধ করছি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘করোনা দ্বারা সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগের চিকিৎসা এ মুহূর্তে আমাদের হাতে নেই, তবু বানোয়াট চিকিৎসার খবরে ফেসবুক ছেয়ে যাচ্ছে।’ ভুয়া খবরে বিভ্রান্ত হয়ে অ্যালকোহল, গরম পানি, ভিনেগার ইত্যাদি গিলে নিজেকে বিপদের মুখে ঠেলে দিতে পারেন যে কেউ। গুজব ও ভুয়া খবরে আক্রান্ত হচ্ছেন শিক্ষিত-অশিক্ষিত নির্বিশেষে সমাজের সর্বস্তরের মানুষ। এখন বিজ্ঞানের যুগ। এই আধুনিক সমাজব্যবস্থায় যারা এ ধরনের গুজব ছড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে, তাদের আইনের আওতায় এনে গুজব ছড়ানোর মূল উদ্দেশ্যগুলো চিহ্নিত করতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়াগুলোকে গুজব ছড়ানোর প্রধান মাধ্যম হিসেবে অনেকে ব্যবহার করছে। মানুষের মনস্তাত্ত্বিক বিষয়গুলোকে বিশ্লেষণ করে কীভাবে গুজব ছড়ানোর প্রবৃত্তি থেকে তাকে মুক্ত করা যায়, এ বিষয়ে গবেষণা চলছে। আমাদের দেশেও সেটি হতে পারে। এ ধরনের গবেষণায় কোনো কোনো মনস্তাত্ত্বিক উপাদান মানুষকে গুজবে আকৃষ্ট হতে ও গুজব ছড়ানোর ক্ষেত্রে প্রভাবিত করে, সে উপাদানগুলো চিহ্নিত করে গবেষণার মাধ্যমে প্রতিরোধ করতে হবে। গুজব প্রতিরোধে প্রশাসনকে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার পাশাপাশি জনগণের মাঝে গুজব সম্পর্কিত সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকে। পাশাপাশি এক্ষেত্রে গণমাধ্যমগুলোও গুজব মোকাবিলায় জরুরি ভূমিকা রাখতে পারে বলে আমরা মনে করি।

আশার কথা, গুজব রটনাকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে প্রশাসন। ফরিদপুরে পুলিশকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে হয়রানি করায় একজনকে এবং করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টির অভিযোগে মানিকগঞ্জে একজনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। করোনা নিয়ে আরো সুখবর হচ্ছে ভ্যাকসিন তৈরির কাজ চলছে। ভ্যাকসিন চলে আসবে। মানুষের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হবে। করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে মানুষ জয়ী হবে। এই ক্রান্তিকালে গুজব রটিয়ে কেউ দায়িত্বহীনতার পরিচয় দেবেন না। বরং করোনা মোকাবিলায় মানুষকে আরো কীভাবে সচেতন করা যায় সে বিষয়ে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। কারণ, ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এ কথা আমারা যেন ভুলে না যাই।

"