আলোর ঝর্ণাধারায় বাংলাদেশ

প্রকাশ : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

উন্নয়নের একটি পূর্বশর্ত সরকারের দীর্ঘস্থায়িত্ব। বিশেষ করে আমাদের মতো দেশে। এখানে সরকার পতনের সঙ্গে সঙ্গে অনেক কিছুই বদলে যায়। থমকে যায় উন্নয়নের ধারাবাহিকতা। সম্ভবত সে কারণেই দেশের অনেকেই মনে করেন, একটি সরকার ক্ষমতায় দীর্ঘ সময় থাকতে পারলে দেশের প্রায় প্রত্যেক নাগরিকের দেহ ও মনে অনুভব করতে পারে উন্নয়নের গতি-প্রকৃতি। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে একটি ঘটনাই এর সত্যতা প্রমাণে সক্ষম হয়েছে। গত ৯ বছরে আমাদের বিদ্যুৎ সক্ষমতা বেড়ে হয়েছে ২০ হাজার মেগাওয়াট। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে পেয়েছিল মাত্র ৩ হাজার ২০০ মেগাওয়াট। একই সময় গ্রাহক সংখ্যা ১ কোটি ৮ লাখ থেকে বেড়ে ৩ কোটি ছাড়িয়েছে। দেশের ৯০ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে।

একটি কথা না বললেই নয় যে, একসময় দেশের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ছিল অত্যন্ত নাজুক। এখান থেকে বেরিয়ে আসার লক্ষ্যে প্রথম পদক্ষেপ নেওয়া হয় ১৯৯৬ সালে। এ সময় বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ে ১ হাজার ১০০ মেগাওয়াট। পরবর্তী সাত বছরে উৎপাদন কমতে থাকে। ২০০৯ সালে আবার ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার আবারও বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর কর্মসূচি গ্রহণ করে; যা এখন ২০ হাজার মেগাওয়াটে এসে দাঁড়িয়েছে। ২০০৯ সালে মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ছিল ২২০ কিলোওয়াট-ঘণ্টা। বর্তমানে যা ৪৬৪ কিলোওয়াট-ঘণ্টায় উন্নীত হয়েছে। গত ৯ বছরে বিদ্যুৎ সুবিধাপ্রাপ্ত জনসমষ্টির সংখ্যা ৪৭ থেকে ৯০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। এর পরও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘দেশ ও জাতির উন্নয়নের জন্য আমাদের আরো বিদ্যুতের প্রয়োজন। আমরা ২০২১ সালের মধ্যে ২৪ হাজার, ৩০ সালের মধ্যে ৪০ হাজার এবং ৪১ সালের মধ্যে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উপাদনের লক্ষ্যে কাজ করে চলেছি।’

বিদ্যুৎ সেক্টরের ধারাবাহিক এ সাফল্যের প্রশংসা করেই বলতে হয়, বিগত ৯ বছরে বিদ্যুৎ সেক্টরের সঞ্চালন লাইন আট হাজার কিলোমিটার থেকে ১১ হাজার ১২২ সার্কিট কিলোমিটারে উন্নীত করা হয়েছে। বিতরণ লাইন ২ লাখ ৬০ হাজার কিলোমিটার হতে ৪ লাখ ৫৭ হাজার কিলোতে উন্নীত হয়েছে। সিস্টেম লসকে ১৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ থেকে আনা হয়েছে ১১ দশমিক ৪০ শতাংশে। একই সঙ্গে আরো একটি কথা না বললেই নয় যে, ইতোমধ্যেই সারা দেশে ৫৩ লাখ সোলার হোম সিস্টেম স্থাপন করার মাধ্যমে প্রায় ২২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। বিষয়টি বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষেত্রে একটি নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে বলেই বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

আমরা মনে করি, দেশের বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়ন হলে তার ছোঁয়া প্রতিটি সেক্টরে প্রতিফলিত হবে এবং তা হচ্ছে; যা ধীরে ধীরে সমাজের সবস্তরকেই স্পর্শ করেছে। আমাদের বিশ্বাস, এধারা অব্যাহত থাকলে আগামী দিনের কোনো একসময়ে আলোর ঝর্ণাধারায় উদ্ভাসিত হবে বাংলাদেশ।

"