প্রতিবন্ধী প্রার্থীরাও আলোচনায়

প্রকাশ : ১১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনে হেভিওয়েট প্রার্থীদের ভিড়ে ভোটারদের নজর কেড়েছেন প্রতিবন্ধী প্রার্থীরাও। সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যেও তাদের নিয়ে বিপুল আগ্রহ তৈরি হয়েছে। এবারের নির্বাচনে ৭৩১ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে মাত্র সাতজন প্রতিবন্ধী প্রার্থী বিভিন্ন পদে লড়ছেন। এর মধ্যে ডাকসুতে প্রার্থী হয়েছেন চারজন। তারা হলেন বামজোটের সদস্য পদে আমজাদ হোসেন, ছাত্রলীগের যোশীয় সাংমা চিবল, স্বতন্ত্র রুবেল মিয়া, সাহিত্য সম্পাদক পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহীন আলম।

আবাসিক হলে প্রার্থী হয়েছেন তিনজন। তারা হলেন সূর্যসেন হলে জিএস পদে শওকত হোসেন, সূর্যসেন হলে সমাজসেবা সম্পাদক পদে রবিউল ইসলাম রুবেল, মুহসীন হলে সমাজসেবা সম্পাদক আবুল হোসেন।

ডাকসুতে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী আমজাদ হোসেন লড়ছেন বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর জোট প্রগতিশীল ছাত্রঐক্যের প্যানেল থেকে। তিনি সদস্যপদে প্রার্থী হয়েছেন। বাংলা বিভাগের এই শিক্ষার্থী নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে ব্যাপক আশাবাদী। তিনি বলছেন, ‘শিক্ষার্থীদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। দীর্ঘদিন ক্যাম্পাসে আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নিয়েছি। শিক্ষার্থীরা আমাকেই ভোট দেবেন।’

জয়ী হলে কী করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ক্যাম্পাসে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের চলাচলের সমস্যা, শিক্ষা উপকরণের অভাব রয়েছে। সেসব নিয়ে পরিকল্পনা আছে। প্রতিবন্ধীদের বিষয়ে অনেক কথা কাগজে-কলমে আছে, বাস্তবে নাই; সেগুলোর বাস্তবায়নে কাজ করব।’ সংস্কৃত বিভাগের শিক্ষার্থী যোশীয় সাংমা চিবল লড়ছেন ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে। আদিবাসী এই শিক্ষার্থী ডাকসুর সদস্যপদে লড়ছেন। কেমন সাড়া পাচ্ছেন জানতে চাইলেন তিনি বলেন, ‘ব্যস্ত সময় পার করছি। নির্বাচিত হলে একজন আদিবাসী, একই সঙ্গে প্রতিবন্ধী হিসেবে দুই গোষ্ঠীর মানুষের জন্যই আমার দায়িত্ব তৈরি হবে। সেসব নিয়ে আমার পরিকল্পনা আছে।’ ডাকসুতে স্বতন্ত্র হিসেবে সদস্যপদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আরেক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী রুবেল মিয়া। ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের স্নাতকোত্তরের ছাত্র তিনি। এই শিক্ষার্থী জানান, যদি জয় লাভ করতে পারেন; তাহলে ধর্ম, বর্ণ, দল ইত্যাদি সব কিছুর ঊর্ধ্বে থেকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সব চাওয়া-পাওয়াকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করবেন।

এদিকে ডাকসুতে চারজন প্রার্থী হলেও হল সংসদে রয়েছেন আরো তিনজন প্রতিবন্ধী প্রার্থী। সূর্যসেন হল সংসদে প্রগতিশীল ছাত্রঐক্যের প্যানেল থেকে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়ন পেয়েছেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শওকত হোসেন। ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের এ শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত বাধার সম্মুখীন হইনি।

 

"