ইউনিভার্সিটি এশিয়া প্যাসিফিক উৎকর্ষ সাধনে অঙ্গীকারবদ্ধ

প্রকাশ : ০৭ জুন ২০২০, ০০:০০

ক্যাম্পাস ডেস্ক

ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক (ইউএপি) একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। বাংলাদেশের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান, যার নাম এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয় ফাউন্ডেশন এই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করছে। এই ফাইন্ডেশনের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে মানবিক ও সামাজিক উন্নয়ন।

১৯৯৬ “উৎকর্ষ সাধনে অঙ্গীকারবদ্ধ” নীতিবাক্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয় ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক (ইউএপি)। চার বছর মেয়াদি কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ব্যবসা প্রশাসন বিভাগ দিয়ে শুরু হয় এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম। পূর্বে রাজধানী ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় অস্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছিল। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন হওয়ার পর, ইউজিসি ২০১০ সালে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিজস্ব ক্যাম্পাসে যাওয়ার সময় বেঁধে দেয়। সেই, আইন মেনে নির্ধারিত পরিমাণ জমিতে নিজস্ব ক্যাম্পাস নির্মাণ শুরু করার পরিকল্পনা হয়। সেই, পরিকল্পনার অংশ হিসাবে ২০১১ সালের ২০ মার্চ সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান রাজধানীর গ্রিন রোডে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের সিটি ক্যাম্পাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বর্তমানে রাজধানীর ঢাকার গ্রীন রোড বিশ্ববিদ্যালয়টির ৩৮৮৮০০ বর্গ ফুট জমিতে নব নির্মিত সিটি ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছে ৯ মে, ২০১৬।

ইউনিভার্সিটির শান্তি ও শৃংখলা বজায় রাখা পবিত্র দায়িত্ব ও কর্তব্য মনে করা হয়। এ কারণে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার পরিবেশ ও শিক্ষাঙ্গনের পবিত্রতা বরাবরই রক্ষিত হয়ে আসছে।বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টি ইংরেজি, স্থাপত্য, ব্যবসা প্রশাসন, সিভিল অ্যান্ড এনভাইরনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ফার্মাসি, আইন এবং ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ইউএপি এর প্রতিটি বিভাগে আছে এক দল অভিজ্ঞ শিক্ষকম-লী। যারা তাদের নিজ দায়িত্ব পালনে সর্বদা সচেষ্ট। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড় থাকায় শিক্ষার্থীদের আন্তরিকতার মধ্য দিয়ে পাঠদান করা হয়। খেলাধুলা এবং অন্যান্য সাংস্কৃতিক অঙ্গনেও রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সাফল্য। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নানা প্রতিযোগিতায়ও রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সাফল্য। বৈশাখি মেলা, পিঠা উৎসব, বসন্ত বরণ ইত্যাদি আয়োজন গুলোতে থাকে শিক্ষার্থীদের সরব অংশগ্রহণ।

ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের সিটি ক্যাম্পাসের নবম তলায় একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার আছে। গ্রন্থাগারে দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক এবং মাসিক পত্র-পত্রিকা ছারাও প্রচুর বই আছে। গ্রন্থাগারকে ক্রমাগত সমৃদ্ধ করা হচ্ছে। সিটি ক্যাম্পাসের নিচ তলা ‘ইউএপি প্লাজা’ নামে পরিচিত। ‘ইউএপি প্লাজায়’ শিক্ষার্থীদের জন্য কমন রুম, আধুনিক ক্যাফেটারিয়া রয়েছে। সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহ করার জন্য জেনারেটর ও সোলার প্যানেলের ব্যাবস্থা করা হচ্ছে। প্রতিটি ক্লাস রুমে আধুনিক শিক্ষা উপকরনের পরিপূর্ণ। ক্যাম্পাসের পেছনে রয়েছে এক খ- জমি, যেখানে একটি শহীদ মিনার এবং ফোয়ারা নির্মাণ করা হচ্ছে। সর্বোপরি, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের সিটি ক্যাম্পাস শিক্ষার্থীদের জন্য একটি পরিপূর্ণ এবং আধুনিক ক্যাম্পাস।

 

"