ঢাবিতে নাজেন্দা-আজিজ ট্রাস্ট বক্তৃতা অনুষ্ঠিত

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন মিলনায়তনে ‘নাজেন্দা-আজিজ ট্রাস্ট বক্তৃতা’ ২৬ নভেম্বর সোমবার অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবু মো. দেলোয়ার হোসেন। অনুষ্ঠানে ‘মানবাধিকার, মানবকল্যাণ ও বাংলাদেশ প্রেক্ষিত’ শীর্ষক বক্তৃতা দেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন নাজেন্দা-আজিজ ট্রাস্ট ফান্ডের দাতা অধ্যাপক ড. গালিব আহসান খান এবং ঢাবি নৈতিক উন্নয়ন কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক ড. এ কে এম হারুনার রশীদ। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রয়াত নাজেন্দা আকতার এবং আজিজুর রহমান খানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং ট্রাস্ট ফান্ডের দাতা ও দাতা পরিবারের সদস্যদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, যে সমাজে মানবাধিকার সুরক্ষিত এবং যে সমাজ নারীর ক্ষমতায়ন ও নারীর প্রতি শ্রদ্ধাশীল, সে সমাজ তত বেশি উন্নত। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান একটি চমৎকার প্রবন্ধ উপস্থাপনের জন্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমানকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, মানবাধিকার ও মানবকল্যাণ নিশ্চিতকরণে তার প্রবন্ধে যে দিকনির্দেশনা আছে, তা থেকে শিক্ষার্থীরা নতুনভাবে শিক্ষা নেবে। আমাদের নৈতিকতার জায়গাটা সব সময় জাগ্রত রাখতে হবে বলে উপাচার্য উল্লেখ করেন। অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান তার প্রবন্ধে বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের ক্ষেত্রে ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে। বয়স্ক-ভাতা, বিধবা-ভাতা, নারী বৃত্তি ইত্যাদি সবই শেখ হাসিনার জনবান্ধব ও প্রগতিশীল ধারণার ফসল বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধকে বিসর্জন দিয়ে যেমন বাংলাদেশের কল্পনা করা যায় না, ঠিক তেমনি মানবাধিকারের ধারণাকে অবজ্ঞা করে, ছোট করে, মানবকল্যাণ নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। সুরক্ষিত মানবাধিকার হচ্ছে মানবকল্যাণ নিশ্চিত করার একমাত্র স্বীকৃত পন্থা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

 

"