বিইউপিতে দশম বার্ষিক সিনেট সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশ : ১০ জুন ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) দশম বার্ষিক সিনেট সভা ৪ জুন সোমবার ইউনিভার্সিটির বিজয় অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন বিইউপির উপাচার্য ও সিনেট চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. এমদাদ উল বারী। সভায় সিনেট চেয়ারম্যান বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক, প্রশাসনিক, উন্নয়ন কার্যক্রমসহ বিভিন্ন দিক নিয়ে বক্তব্য উপস্থাপন করেন। পরে বিইউপির ট্রেজারার এয়ার কমোডর মো. আবদুস সামাদ আজাদ ২০১৭-১৮ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেট ৯৪ কোটি ১৯ লাখ টাকা ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ৯৫ কোটি ১২ লাখ টাকা বাজেট উপস্থাপন করেন। সিনেট সদস্যরা উপাচার্য মহোদয়ের ভাষণ ও ট্রেজারারের বক্তৃতার ওপর আলোচনা করেন এবং সর্বসম্মতিক্রমে বাজেট প্রস্তাব অনুমোদন করেন। এ ছাড়া সিনেট সভায় বিইউপির দশম বার্ষিক প্রতিবেদন (জুলাই ২০১৭-জুন ২০১৮) পেশ করেন এয়ার কমোডর মো. আমিনুল ইসলাম এবং সর্বসম্মতিক্রমে সদস্যরা ওই প্রতিবেদনটি অনুমোদন করেন।

বাজেটে সমাবর্তন, বই, জার্নাল ও ডকুমেন্ট ক্রয়, জার্নাল প্রকাশনা, ছাত্রছাত্রীদের মেধাবৃৃত্তি প্রদান, কারিকুলামের আধুনিকায়ন, কম্পিউটারসামগ্রী ও বই অনুদান, গবেষণা ব্যয়, মৌলিক গ্রন্থ প্রকাশনা, বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের সথেঙ্গ একাডেমিক বিনিময় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণসহ একাডেমিক উন্নয়নে ব্যয় বরাদ্দের ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

সিনেট সভায় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান, সংসদ সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, প্রফেসর ড. মো. আবদুর রাজ্জাক, সংসদ সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম (বীর-উত্তম), সংসদ সদস্য এইচ এন আশিকুর রহমান এবং বিইউপির উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. এম আবুল কাশেম মজুমদার এবং সিনেটের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিইউপির ভিসি ও সিনেট চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. এমদাদ-উল বারী, এনডিসি, পিএসসি, টিই তার বক্তব্যে গত এক বছরের কার্যক্রমের একটি চিত্র সিনেট সদস্যদের সামনে তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ৩৯তম সিন্ডিকেট সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইতোমধ্যে বঙ্গবন্ধু চেয়ার স্থাপন করা হয়েছে। ৬ জন গবেষণা সহযোগীসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বঙ্গবন্ধু চেয়ারের প্রথম অধ্যাপক হিসেবে বঙ্গবন্ধুর জীবনী ও তার কাজের ওপর গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন।

তিনি বলেন, নবম সিনেট সভা পর্যন্ত বিইউপির ইনহাউস ফ্যাকাল্টিতে ১৬টি আন্ডার-গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম এবং নয়টি পোস্ট-গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম চলমান ছিল। এ বছরের শুরু থেকে এলএলএম এবং এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সে মাস্টার্স প্রোগ্রাম দুটি চালু হয়েছে। আগামী ২০১৯ সাল থেকে ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, অর্থনীতি ও ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস্ বিষয়ে মাস্টার্স প্রোগ্রাম চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, গত সিনেট সভায় দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর বিইউপির গ্র্যাজুয়েটদের চতুর্থ সমাবর্তনের মাধ্যমে তাদের ডিগ্রির আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়া হয় এবং ২৭ ডিসেম্বর ওপেনিং কনভোকেশনের মাধ্যমে বিইউপির সব প্রোগ্রামের নতুন ব্যাচের যাত্রা শুরু হয়। আমরা অতীতের মতো ভবিষ্যতেও এসব প্রোগ্রাম অব্যাহত রাখতে সচেষ্ট থাকব। পরিশেষে তিনি সিনেট সভায় উপস্থিত সব সম্মানিত সদস্যকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিইউপির দশম বার্ষিক সিনেট সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"