চবিতে ইতিহাস বিভাগের সেমিনার

প্রকাশ : ০৫ মার্চ ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০১৮ উপলক্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ইতিহাস বিভাগের উদ্যোগে ২৮ ফেব্রুয়ারি বুধবার ওই বিভাগের ৩১৫নং কক্ষে ‘ভাষা আন্দোলনে চট্টগ্রাম ও আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি থেকে এ সেমিনারে ভাষণ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীন আখতার। ইতিহাস বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মাহবুবুল হকের সভাপতিত্বে এ সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওই বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী চৌধুরী। ওই বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জাহিদুর রহমানের পরিচালনায় এ সেমিনারে বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

উপ-উপাচার্য তার ভাষণে ভাষাশহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সেমিনার আয়োজন করায় আয়োজকবৃন্দকে বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। উপ-উপাচার্য বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ ও গবেষক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী চৌধুরী উপস্থাপিত প্রবন্ধের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং এ উপস্থাপিত প্রবন্ধের বিভিন্ন দিক আলোকপাত করে বলেন, চট্টগ্রাম এ দেশের গণমানুষের মুক্তি ও স্বাধীনতা আন্দোলনের সূতিকাগার। ভাষা আন্দোলনও এর ব্যতিক্রম ছিল না।

উপ-উপাচার্য আরো বলেন, চট্টগ্রামে ভাষা আন্দোলনের বীজ অঙ্কুরিত হয়েছিল। তিনি বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন তথা ৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থান,

৭০-এর নির্বাচন এবং ৭১-এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মহান স্বাধীনতা আন্দোলন এবং বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠায় বীর চট্টলার রয়েছে অসামান্য ভূমিকা ও অবদান। প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের শেকড় সন্ধানী গবেষক বিশিষ্ট পুঁথি-লোকসাহিত্যিক আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে দিয়েছে বিশেষ জীবনীশক্তি। তাই এই অসাম্প্রদায়িক চেতনার এ সাহিত্য বিশারদ যুগ যুগ ধরে

আমাদের মধ্যে বেঁচে থাকবেন। পরে উপস্থাপিত প্রবন্ধের ওপর উপস্থিত শিক্ষক-গবেষক ও শিক্ষার্থীরা মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"