জাতীয় গ্রন্থাগার দিবসে চুয়েট ভিসি

নিজেকে সমৃদ্ধ করতে হলে বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই

প্রকাশ : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) প্রথমবারের মতো ‘বই পড়ি, স্বদেশ গড়ি’-স্লোগানে জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস-২০১৮ পালিত হয়েছে। ৫ ফেব্রুয়ারি সোমবার চুয়েট কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির আয়োজনে পুরকৌশল বিভাগের সেমিনার কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চুয়েট ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে উন্নত বিশ্বের অভিযাত্রায় রয়েছে। ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমাদের সবদিক দিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। সে জন্য আমাদের বর্তমান প্রজন্মকে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। নিজেকে সমৃদ্ধ করতে হলে বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই। বর্তমান তরুণ প্রজন্ম নৈতিক অবক্ষয়ের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। বইপড়ার প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করে বর্তমান প্রজন্মকে গ্রন্থাগারমুখী করার সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনা থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলতি বছর থেকে প্রথমবারের মতো জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস পালনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তিনি আরো বলেন, চুয়েট কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিকে শিগগিরই পুরোপুরি অটোমেশনের আওতায় আনা হবে। মুক্তিযুদ্ধ কর্ণারকে আরো সমৃদ্ধ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

লাইব্রেরিয়ান মো. আ. খালেক সরকারের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থাপত্য ও পরিকল্পনা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. সাইফুল ইসলাম, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. রণজিৎ কুমার সূত্রধর, পুরকৌশল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবদুর রহমান ভূঁইয়া, তড়িৎ ও কম্পিউটার কৌশল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. কৌশিক দেব এবং ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হক। সহকারী লাইব্রেরিয়ান মো. এমরানুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন চুয়েট কর্মকর্তা সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী সৈয়দ মুহাম্মদ ইকরাম এবং কর্মচারী সমিতির সভাপতি মো. জামাল উদ্দীন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"