খুবিতে ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের ২৫ বছর পূর্তি

নিজ নিজ পেশায় সততা ও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপনের আহ্বান

প্রকাশ : ০২ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ২৩ ডিসেম্বর শনিবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের ২৫ বছর পূর্তিতে আয়োজিত দুই দিনব্যাপী রজতজয়ন্তী শেষ হলো। সমাপনী দিনে প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে রজতজন্তীর উদ্বোধন করেন। পরে তার নেতৃত্বে ক্যাম্পাসের হাদী চত্বর থেকে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি প্রশাসন ভবন হয়ে কটকা স্মৃতিস্তম্ভ দিয়ে লাইব্রেরি ভবন হয়ে অদম্য বাংলা চত্বর দিয়ে জীববিজ্ঞান ভবনের সামনে এসে শেষ হয়।

উপাচার্য রজতজয়ন্তী উৎসবের কেক কাটেন। পরে আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো প্রতিষ্ঠানে কোনো ডিসিপ্লিন বা বিভাগের ২৫ বছর পর রজতজয়ন্তী উৎসব মানেই সেটি এক আবেগঘন অনুষ্ঠান। শিক্ষাজীবনে ক্যাম্পাসের অনেক স্মৃতি থাকে, অনেক ঘটনা থাকে, যা কখনই ভোলা যায় না। এসব অনুষ্ঠানে নষ্টালজিয়া কাজ করে। তিনি বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিন এখন অত্যন্ত প্রতিষ্ঠিত একটি ডিসিপ্লিন হিসেবে কাজ করছে। বিগত ২৫ বছরে এখান থেকে যে সাত শতাধিক গ্র্যাজুয়েট বের হয়েছেন; তারাও বিভিন্ন পেশায় দক্ষতা, নৈপুণ্য ও সাফল্য প্রদর্শন করছেন; যা আমাদের সবাইকে আশান্বিত করেছে। তিনি প্রাক্তন গ্র্যাজুয়েটদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

উপাচার্য তাদের প্রতি নিজ নিজ পেশায় সততা ও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করার পাশাপাশি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপনের আহ্বান জানান; যাতে তাদের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ও ভাবমূর্তি যাতে আরো বৃদ্ধি পায়। তিনি বলেন, দেশে মাদক একটি ভয়াবহ সমস্যা। এ সমস্যা নিরসন একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। খুবির অনেক প্রাক্তন গ্র্যাজুয়েট পুলিশ ক্যাডারে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। ফরেস্টসহ অনেক ক্যাডার ও নন-ক্যাডার সার্ভিসেও অনেকসংখ্যক গ্র্যাজুয়েট কাজ করছেন। তারা যেখানে কাজ করেন, সেখানে নিজেরা যেন দুর্নীতিমুক্ত থাকেন এবং কোনো চাপের মুখে নতিস্বীকার না করে দেশ ও সমাজের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করেন; যা অন্যদের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়। তিনি প্রাক্তন গ্র্যাজুয়েটদের সংগঠন অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় বা তার নিজের ডিসিপ্লিনের জন্য অবদান রাখার আহ্বান জানান।

ডিসিপ্লিন প্রধান অধ্যাপক ড. মো. এনামুল কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক সাধন রঞ্জন ঘোষ, জীববিজ্ঞান স্কুলের ডিন অধ্যাপক এ কে ফজলুল হক, উপ-প্রধান বন সংরক্ষক জহির উদ্দিন আহমেদ, খুবির ফউটে ডিসিপ্লিনের প্রথম শিক্ষক অধ্যাপক মো. আব্দুল মতিন, অ্যালমনাইদের পক্ষ থেকে খুলনার বন সংরক্ষক আমীর হোসেন চৌধুরী, উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নাজমুস সাদাত ও নবীন শিক্ষার্থীদের পক্ষে মো. আরিফুল আলম পলাশ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখে দেন ফউটে অ্যালামনাই অ্যাডহক কমিটির আহ্বায়ক ড. মো. মিজানুর রহমান তুষার। আলোচনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মো. আসিফ হায়দার খান ও আসম-উল-হুসনা মনিকা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সমাপনী দিবসে অন্যান্য আয়োজনের মধ্যে ছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্মৃতিচারণ, শিশুদের ইভেন্ট, কৌতুক প্রদর্শন ও ফানুস উড়ানো। রজতজয়ন্তী উপলক্ষে জীববিজ্ঞান ভবনসহ অদম্য বাংলা চত্বর সাজানো হয় নতুন সাজে এবং বহুমাত্রিক উজ্জ্বল আলোকসজ্জায় উদ্ভাসিত হয় ক্যাম্পাস। এ ছাড়া রজতজয়ন্তী উৎসবে অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের নতুন নির্বাহী কমিটি গঠিত হয়। এ ছাড়া গতকাল রজতজয়ন্তী উৎসবের প্রথম দিনে বিকেলে আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ‘কেরিয়ার অপরচুনিটি অব ফউটে গ্র্যাজুয়েট’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিন প্রধান অধ্যাপক ড. মো. এনামুল কবীরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জীববিজ্ঞান স্কুলের ডিন অধ্যাপক এ কে ফজলুল হক। সেমিনারে ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষার্থীদের বিসিএস ক্যাডারে

বিভিন্ন পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে ফরম পূরণ ও নিয়োগ সংক্রান্ত নিয়মাবলি সম্পর্কে অভিহিত

করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকা বন বিভাগের কনজারভেটর অব ফরেস্টস উইল্ডলাইফ ন্যাচার কনজারভেশন সার্কেলের মো. জাহিদুল কবীর। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চলনা করেন সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনের অধ্যাপক মো. ওয়াসিউল ইসলাম। এ সময় সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনের শিক্ষক, প্রাক্তন গ্র্যাজুয়েট ও নবীন শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"