পত্রিকাটি হোক সবার

প্রকাশ : ০৩ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

দিবাকর সরকার

গতানুগতিক মানদৃষ্টে প্রতিদিনের সংবাদ দৈনিক পাঠকদের মাঝে ভিন্নতা প্রতিষ্ঠিত করেছে। সংবাদের গভীরতা, সাহিত্যের প্রগাঢ়তা, ফিচারের মানসম্পন্নতা সব মিলিয়ে পত্রিকাটিতে উঠে এসেছে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী রূপ, যা কিনা সম্প্রীতি, চাকচিক্যের দিক দিয়েও নিপুণতাসমৃদ্ধ।

আজকে ষষ্ঠ জন্মদিনে একজন সাধারণ লেখক হিসেবে যে দিকটি আমি আলোচনা করছি সেটি হচ্ছে, সাহিত্যপাতায় মানসম্পন্ন লেখা নির্ধারণ। আজকাল অনলাইন বা ছাপানো মিডিয়া অনেক রয়েছে। রয়েছে সহজলভ্য মাধ্যম যা কিনা অসত্য, নিম্নমানের রসনাবিলাস। যদিও আফসোসের বিষয় সেইসব পত্রিকারও একটা পাঠকগোষ্ঠী গড়ে উঠেছে। কিন্তু প্রতিদিনের সংবাদ সস্তা হয়নি বা হতে চায়নি। রেখেছে মান বজায়, যার কারণে আমার মতো যারা চাই মানসম্মত কিছু, তাদের প্রিয় থেকে প্রিয় হয়ে উঠেছে।

লোকায়জ গান, কবিতা, ছন্দ, সরলতা ধারণ করুক তাই বলে আধুনিক কাব্যে অলংকার না হলে সেটা মেনে নেওয়া মুশকিল। সাহিত্য হবে লোককথা, তাই বলে সাধারণের আয়ত্তে সর্বদা থাকতে হবে এমন কথা নেই। ইন্টেলেকচুয়ালিটি দিয়ে পাঠক রস আস্বাদন না করতে পারলে সেটাকে কাব্যের তালিকায় রাখাটা অনুচিত। মধুর কথা প্রজ্ঞায় উজ্জ্বল হলে সেটিই হয়ে ওঠে আসল সাহিত্য। আর এই দিক দিয়ে তুলনামূলকভাবে পত্রিকাটির সাহিত্যপাতার একজন নিয়মিত ভক্ত আমি।

এবারে আসা যাক প্রতিদিনের সংবাদের কাছে কী আশা আমার? চাইব, দিনে দিনে বাংলাদেশের একমাত্র দৈনিক হয়ে উঠুক যাতে কিনা চাহিদা পূরণ হবে সবার।

"