নওয়াজের উত্তরসূরি নিয়োগের নির্দেশ পাক নির্বাচন কমিশনের

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

পাকিস্তানে দেশটির নির্বাচন কমিশন সদ্য পদত্যাগ করা প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের রাজনৈতিক দল পিএমএল (এন)-কে নতুন দল প্রধান নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন থেকে প্রেরিত এক নোটিসে এই বার্তা দেওয়া হয়।

ওই নোটিসে বলা হয়, দেশটির ‘রাজনৈতিক দল অধ্যাদেশ ২০০২’ অনুসারে একজন অযোগ্য ঘোষিত আইনপ্রণেতা কোনো রাজনৈতিক দলের পদে থাকতে পারেন না। পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন সেই নোটিসে দেশটির সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পদত্যাগের বিষয়টি উল্লেখ করে।

পাশাপাশি, পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দল পিএমএল (এন)-এর নিজস্ব গঠনতন্ত্রের ১৫ নং অনুচ্ছেদও উল্লেখ করে। অনুচ্ছেদে বলা আছে ‘যদি দল প্রধানের পদ খালি হয় তবে তা এক সপ্তাহের মধ্যে পূরণ করতে হবে’।

ওই নোটিসে দ্রুত দল প্রধান নিয়োগ করে তা আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন কমিশন জানানোর কথা বলা হয়। এর আগে, পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে সুপ্রিম কোর্টে অযোগ্য ঘোষিত হয়ে গত ২৮ জুলাই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন নওয়াজ শরিফ। এরপর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনের জন্য নওয়াজের ছোট ভাই শাহবাজ শরিফকে নির্বাচন করে পিএমএল-এন। তবে শাহবাজ দায়িত্ব গ্রহণের আগ পর্যন্ত অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শহিদ খাকন আব্বাসি দায়িত্বে থাকবেন।

হাফিজ সইদ পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী : আন্তর্জাতিক মহলে জঙ্গি স্বীকৃত পেলেও পাকিস্তান যে লস্করপ্রধান হাফিজ সাইদের কাছে স্বর্গরাজ্য তা প্রমাণিত হলো আবারও। এবার দল গড়ে সরাসরি প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে নাম লেখালেন সাইদ।

লস্করের শাখা সংগঠন জামাত-উল-দওয়া আদর্শকে পাথেয় করে মিল্লি মুসলিম লিগ পার্টি নামে একটি রাজনৈতিক দল শুরু করল সাইদ এর সহযোগীরা। নিজের মুখে এ কথা জানিয়েছেন দলটির প্রেসিডেন্ট সাইফুল্লাহ খালিদ।

২০০৮ সালে এই হাফিজ সইদের পরিকল্পনাতেই হামলা হয়েছিল মুম্বাইয়ে। মৃত্যু হয়েছিল ১৬৬ জনের। এর পর আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে চাপ বাড়াতে শুরু করে ভারত। অভিযোগ করা হয়, সাইদকে আস্তানা দিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে সাহায্য করছে পাক প্রশাসন। এমনকি সাইদকে আন্তর্জাতিক জঙ্গিও ঘোষণা করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যে পাক ইলেকশন কমিশনে আবেদনপত্রও জমা দেওয়া হয়ে গিয়েছে। প্রস্তুতি প্রায় শেষ।

এবার শুধু আনুষ্ঠানিক ঘোষণার পালা।

এ ব্যাপারে দলের মুখপাত্র তাবিশ কোয়াকম জানিয়েছেন, তাদের দাবি হাফিজ সাইদকে ঘরবন্দিদশা থেকে মুক্তি দিতে হবে। একবার সাইদ মুক্তি পেলেই তাকে দলের ইচ্ছামতো পদ বেছে নিতে অনুরোধ করা হবে।

এদিকে দল গঠনের কিছুদিন আগেই ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল, পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌঁড়ে থাকতে পারেন হাফিজ সাইদ। এখন তাঁরই অনুগামীদের নতুন রাজনৈতিক দল গঠন নিয়ে সেই জল্পনাই সত্যি হচ্ছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। কলকাতা টোয়েন্টিফোর।

"