রাশিয়ার সঙ্গে যোগসাজশ

তদন্তে সাবেক গোয়েন্দা কর্তা, উষ্মা ট্রাম্পের

প্রকাশ : ২০ মে ২০১৭, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রথমে বলেছিলেন, ‘ভালোই হয়েছে। এবার সব স্পষ্ট হয়ে যাবে।’ কিন্তু তার পরই সুর পাল্টে অভিযোগ করলেন, ‘ডাইনি-খোঁজ চলছে। আমার মতো হেনস্তা কোনো নেতাকে করা হয়নি।’ অভিযোগের সুরটা পরিচিত। মসনদে আসার পরে ১২০ দিন কাটতে চলল। কিন্তু বিস্ফোরক মন্তব্য করার চেনা ছক থেকে কিছুতেই বের হতে পারছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গতকাল জাস্টিস ডিপার্টমেন্টের নতুন নিয়োগ নিয়ে প্রথমে সন্তোষ জানালেও কয়েক ঘণ্টা পরই ট্রাম্প বলে ফেলেন, ‘এসবই ষড়যন্ত্র!’ সেই জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট, যার দায়িত্বে ট্রাম্পের প্রিয় কূটনীতিক, অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস! কেন এত খেপলেন ট্রাম্প? ২০১৬ সালের নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সাবেক এফবিআই কর্তা রবার্ট মুলারকে। গতকাল রাতেই এ ঘোষণা করা হয়। তখন ৫৭ শব্দের এক সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়ায় প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, ‘আমার প্রচারের সঙ্গে কোনো বিদেশি শক্তি হাত মেলায়নি। তদন্তের পর এ কথা আরো স্পষ্ট হয়ে যাবে।’ প্রেসিডেন্টের এই ‘সংযত’ প্রতিক্রিয়ায় হাফ ছেড়ে বাঁচে হোয়াইট হাউসও। কিন্তু সেই স্বস্তি দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। বৃহস্পতিবার সকালেই ট্রাম্প তোপ দাগার জন্য বেছে নেন তার সব থেকে প্রিয় মাধ্যম-টুইটার। সাত-সকালেই পরপর দুটি টুইট। প্রথমে বলেন, ‘ক্লিনটনের প্রচার ও ওবামা জমানায় তো অসংখ্য দুর্নীতি হয়েছে। কই, তখন তো কোনো বিশেষ তদন্তকারী অফিসার নিয়োগ করা হয়নি!’ এখানেই থামেননি প্রেসিডেন্ট। ১৩ মিনিট পরেই দ্বিতীয় টুইটে তার বিস্ফোরক মন্তব্য, ‘আমেরিকার ইতিহাসে এভাবে কখনো ডাইনি-খোঁজ চলেনি।’ মুলার বা রুশ হস্তক্ষেপের কথা না বললেও সেই প্রসঙ্গেই যে ট্রাম্পের এই উক্তি, তা বুঝতে কারোরই অসুবিধা হচ্ছে না। নির্বাচনের পর থেকেই রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগে বিদ্ধ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। গত সপ্তাহে এফবিআই কর্তা জেমস কোমিকে বরখাস্ত করার পর সেই অভিযোগের পারদ আরো চড়েছে। কিন্তু ট্রাম্পের দাবি, ‘ইতিহাসে আর কোনো রাজনীতিবিদকে এতটা অন্যায়ভাবে দেখা হয়নি।’

কোনো প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এতটা দুর্ব্যবহার করেনি মিডিয়া!-আক্ষেপ ট্রাম্পের : তার মতো আর কোনো প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সংবাদমাধ্যম এতটা দুর্ব্যবহার করেনি বলে আক্ষেপ ঝরে পড়ল মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের গলায়! তার মতে, সংবাদমাধ্যম তার সঙ্গে যে ব্যবহারটা করেছে, তা একটা ইতিহাস।

নিউ লন্ডন কানেক্টিকাটে মার্কিন উপকূল রক্ষী বাহিনীর একটি একাডেমির উদ্বোধন করতে গিয়ে বুধবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘আমার মতো আর কোনো দেশের কোনো প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সংবাদমাধ্যম এতটা দুর্ব্যবহার করেছে বলে আমার জানা নেই। এটা ইতিহাস হয়ে গেছে। নির্বাচনী প্রচারের সময় থেকেই এটা হয়ে আসছে। আর সেই জন্যই আমরা এত বিপুল জয় পেয়েছি। শত্রুতাই মানুষকে শক্তিশালী করে তোলে। বলে, হাল ছেড়ো না, পিছু হঠে যেও না।

আর যেটা তুমি ঠিক মনে করো, তা করা থেকে পিছিয়ে এসো না। লড়াইয়ের ময়দানে আসলে চট করে কিছুই পাওয়া যায় না। সহজে কিছু হয় না। আর সেই লড়াইটা যত বেশি ঠিকঠাক হবে, ততই বাড়বে বিরোধিতা। সমালোচনা বাড়বে, বাড়বে নিন্দামন্দও। এ দেশের যে মানুষদের এত দিন ভুলে যাওয়া হয়েছিল, উপেক্ষা করা হয়েছিল, আমি তাদের জন্য লড়তেই নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলাম। এখনো তাদের হয়েই কাজ করে চলেছি।’

"