স্তন ক্যানসার হয়েছে কি না, পথ দেখাচ্ছেন অন্ধরা

প্রকাশ : ১২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সারা বিশ্বে স্তন ক্যানসারে নারীদের মৃত্যুর হার বাড়ছে। সাধারণত ৫০ বছরের ওপরে যাদের বয়স তাদের মধ্যে এই ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। স্তন ক্যানসার থেকে জীবন রক্ষার একটি উপায় হলো, যত দ্রুত সম্ভব এটিকে শনাক্ত করা। আর কলম্ববিয়াতে এই কাজে লাগানো হয়েছে অন্ধ ব্যক্তিদের।

কোনো নারীর স্তন ক্যানসার হয়েছে কি না, কলম্বিয়াতে সেটা অন্ধ ও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা পরীক্ষা করে দেখছেন। এই প্রকল্পটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘যে হাত জীবন বাঁচাতে পারে’।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অন্ধ ব্যক্তির হাতের স্পর্শ অত্যন্ত সংবেদনশীল হওয়ায় স্তন ক্যানসার শনাক্ত করার কাজে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

লিইডি গার্সিয়া একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। স্তন ক্যানসারের উপসর্গ শনাক্ত করার কাজে তাকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলছেন, ‘আমার কাছে হাতই হলো চোখ। হাত দুটো দিয়েই আমি সারা বিশ্বকে অনুভব করতে পারি। বর্তমানে আমি যা কিছু করছি, এই হাত দুটো ছাড়া সেসব করা অসম্ভব ছিল।’

গার্সিয়া বলেন, ‘আমার আঙুল ও আঙুলের মাথা দিয়ে স্পর্শের যে অনুভূতি, সেটা দিয়ে আমি অন্য নারীদের সাহায্য করতে পারছি। স্তনের টিস্যুতে কোনা ধরনের পরিবর্তন বা অস্বাভাবিক

কিছু থাকলে সেটা আমি আমার স্পর্শ দিয়ে চিহ্নিত করতে পারি। বুঝতে পারি স্তনে অস্বাভাবিক কোনো লাম্প বা মাংসপি- আছে কি না।’

অন্ধদের দিয়ে স্তন পরীক্ষার এই উপায়টি উদ্ভাবন করেছেন জার্মান গাইনোকোলজিস্ট ড. ফ্রাঙ্ক হোফম্যান। তাদের স্পর্শ অত্যন্ত সংবেদনশীল হওয়ায় স্তন ক্যানসার শনাক্ত করার ব্যাপারে তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে এই কাজে লাগানো হয়েছে।

 

"