টেক্সাসে হামলার ঘটনায় এফবিআইয়ের তদন্ত শুরু

প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মেক্সিকো সীমান্তবর্তী টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের এল পাসো শহরের একটি শপিং মলে বন্দুকধারীর হামলার ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে মার্কিন তদন্ত সংস্থা এফবিআই। টেক্সাস কর্তৃপক্ষের নেতৃত্বে এই ঘটনায় সন্ত্রাসবিরোধী অভ্যন্তরীন তদন্ত করবে এল পাসো এফবিআই। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এই খবর নিশ্চিত করেছে।

গত শনিবার টেক্সাসের এল পাসো শহরের ওয়ালমার্ট স্টোরে হামলা চালায় সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারী। ওই হামলায় ২০ জন নিহত ও ২৬ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ২১ বছর বয়সি প্যাট্রিক ক্রুসিয়াস নামের এক তরুণকে আটক করা হয়েছে।

এফবিআই সূত্রের বরাতে সিএনএন জানিয়েছে, তদন্তের অংশ হিসেবে টেক্সাসের স্যাটেলাইট কার্যালয় থেকে বিভিন্ন উপকরণ সংগ্রহ করা হয়েছে। এছাড়া হামলার সময়ে তোলা ছবি বা ভিডিও এফবিআইয়ের কাছে জমা দিতে প্রত্যক্ষদর্শীদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

হামলাকারী অ্যালেন শহরের বাসিন্দা, পড়েছেন কলিন কলেজে : যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের একটি শপিং মলে বন্দুক হামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে আটক তরুণ প্যাট্রিক ক্রসিয়াস ডালাস এলাকার অ্যালেন শহরের বাসিন্দা। ম্যাক কিন্নি অঞ্চলের কলিন্স কলেজে পড়াশোনা করেছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, এই হামলার উদ্দেশ্য জানতে কয়েক দিন আগে অনলাইনে পোস্ট করা একটি লেখা পর্যালোচনা করা হচ্ছে। ওই লেখাটি ক্রসিয়াসের লেখা বলে ধারণা করা হলেও সে সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

নিবার টেক্সাসের এল পাসো শহরের ওয়ালমার্ট স্টোরে হামলা চালায় সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারী। ওই হামলায় ২০ জন নিহত ও ২৬ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ২১ বছর বয়সি প্যাট্রিক ক্রসিয়াস নামের এক তরুণকে আটক করেছে মার্কিন কর্তৃপক্ষ। সিসিটিভি ফুটেজে কালো রঙের টিশার্ট পরিহিত ওই তরুণকে অ্যাসাল্ট ধরনের রাইফেল হাতে হামলা চালাতে দেখা গেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, সন্দেহভাজন হামলাকারী এল পাসো থেকে ৬৫০ মাইল পূর্বে অবস্থিত অ্যালেন শহরের বাসিন্দা। ম্যাক কিন্নির জেলা প্রেসিডেন্ট ড. নেইল ম্যাটকিন জানিয়েছেন, ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত কলিন কলেজে পড়াশোনা করেছে ওই তরুণ। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘টেক্সাসের এল পাসো শহরে আজ (শনিবার) বন্দুক হামলার খবর শুনে আমরা খুবই দুঃখিত ও হতাশ। কলিন কলেজে ২০১৭ সালের শরৎ থেকে ২০১৯ সালের বসন্ত পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে প্যাট্রিক ক্রসিয়াস’। তিনি জানান, এই হামলার তদন্তে রাজ্য ও কেন্দ্রীয় প্রশাসনকে সহায়তা দিতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে কলিন কলেজ।

কেন্দ্রীয় সূত্রের বরাতে সিএনএন জানিয়েছে, হামলার কয়েক দিন আগে অনলাইনে

পোস্ট করা একটি লেখা পর্যালোচনা

করে হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানার

চেষ্টা করা হচ্ছে। ওই লেখাটি ক্রসিয়াস লিখেছে বলে ধারণা করা হলেও তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

 

"