তেতে আছে দিল্লি

প্রকাশ : ১৫ মে ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

চশমা, কাচের চুড়ি, চপ্পল আর বিয়ের কার্ডের দোকানে ঠাসা এলাকাটা। তেলে ভাজা, রুহ আফজা, কাবাব, ভাল্লা পাপড়ি সব মিলিয়ে এক প্রাচীন গন্ধ। শুধু গত এক মাস নয়, আগে থেকেই এখানকার আপ বিধায়ক ইমরান হুসেন আমাদের সঙ্গে আছেন। মাঝে মাঝেই এসে দোকানে ঢুকে পড়েন কোনো সাঙ্গোপাঙ্গ ছাড়াই, জানাচ্ছেন শাফিকুল রহমান। একে রমজানের মাস, তায় প্রবল গরমের দুপুর। চোখে আগুন জ্বলছে বাব্বর অপটিকস হোলসেলারের মালিকের। নোটবন্দিতে যা চোট পেয়েছিলেন, তার ক্ষত এখনো শুকোয়নি। তিনি বলেন, আমরা যেহেতু গোটা দেশে পাইকারি ব্যবসা করি, জিএসটিতে আমাদের তেমন সমস্যা হয়নি। কিন্তু ঘরে ঔরতদের যা পুঁজি জমানো ছিল, সব খালি। দাদি, খালা, নানিদের বদ দোয়া এবার মোদির সঙ্গে। কিন্তু একইসঙ্গে শাফিকুল এ কথাও মনে করছেন যে, গোটা চাঁদনি চকের মুসলমান সম্প্রদায়ের প্রায় ৬০ শতাংশ মোদি বিরোধিতায় এককাট্টা হলেও এই আসনে বিজেপি প্রার্থী তথা সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হর্ষ বর্ধনকে হারানো যাবে না।

চাঁদনি চকের এই ব্যবসায়ীর বক্তব্য যেন গোটা দিল্লির ভোটের ছবিকেই তুলে ধরছে। ২০১৪ সালের লোকসভায় বিজেপি পেয়েছিল ৪৬ শতাংশ ভোট। কংগ্রেস পেয়েছিল ১৫, আপ পেয়েছিল প্রায় ৩৩ শতাংশ। সেই হিসাবে এবার আপ-কংগ্রেস জোট হলে তারা বিজেপির থেকে বেশি পেত। ২০১৫ সালে দিল্লির বিধানসভা ভোটে বিজেপি ৭০টার মধ্যে মাত্র তিনটি আসন জিতলেও ভোট কিন্তু প্রায় ৩২ শতাংশ ধরে রেখেছিল। কংগ্রেসের ভোট ১০ শতাংশে নেমে আসে। তার ফায়দা তুলেছিল আপ।

পাশেই দাঁড়ানো আর এক সানগ্লাস ব্যবসায়ী সালমান আতিকের কথায়, ‘ঘুরে দেখুন। খোলাখুলিই লোকে কথা বলবেন। বিজেপিকে এক সুরে সবাই সমালোচনা করবেন। কেউ বলবেন, কংগ্রেসের জয়প্রকাশ অগ্রবালকে ভোট দেবেন। অনেকে আবার আপকে দিতে উৎসুক। বিরোধী ভোট যে ভাগ হয়ে যাচ্ছে, বুঝতে পারবেন।’

বিজেপি প্রার্থী অথবা কর্মী প্রচারকরা, ভোট-বাজারে এই মহল্লা মাড়াননি। এখানে একটি ভোটও যে পদ্ম চিহ্নে পড়বে না, সেটা জেনেই সম্ভবত বৃথা পরিশ্রম করতে চান না তারা। সেভাবে কখনো সাম্প্রদায়িক অশান্তি না হওয়া এই এলাকায় বরং হিন্দুদের মধ্যে পাকিস্তানের নাম করে উসকানি দিতেই ব্যস্ত বিজেপি, জানাচ্ছেন দিলশাদ। এক চিলতে একটি দোকান চালান। ফিরোজাবাদ থেকে আনা বাহারি কাঁচের চুড়ি দিয়ে সাজানো। আগে দিনে হাজার দশেক টাকার ব্যবসা হতো। গত দুই বছরে এতটাই মন্দা যে, লাভ ছেড়ে দিন, সংসার চালানোর অবস্থাও প্রায় থাকছে না।

দিল্লি সরকারের ‘চাঁদনি চক রিডেভেলপমেন্ট প্ল্যানিং’-এর কাজ চলছে গত কয়েক বছর ধরে। কিন্তু উন্নয়ন কতটা এগিয়েছে স্পষ্ট নয়। জায়গায় জায়গায় রাস্তাঘাট প্রায় নরক হয়ে রয়েছে। স্থানীয় দোকানদাররা বলছেন, পুরোনো হয়ে যাওয়া নালা-নর্দমা ফেটে জল উপচে পড়ে মাঝে মাঝেই পূতিগন্ধময় হয়ে যায় গোটা এলাকা। কারো কোনো হেলদোল নেই। এমনিতেই ডিজিটাল যুগে বিয়ের কার্ড ব্যাপারটাই উঠে যাচ্ছে। তার মধ্যে দোকানের সামনে এই দুর্গন্ধ। মুখ দেখেই বোঝা যাচ্ছে কী পরিমাণ বিরক্ত ‘নবরতন ওয়েডিং কার্ড’-এর মালিক আর কে জৈন। পাশাপাশি অন্তত গোটা বারো কার্ডের দোকান একইভাবে মাছি মারছে। নোটবন্দি যখন হয়েছিল, তখন ভরা বিয়ের মরসুম। লোকের হাতে সে সময় বিয়ে করার টাকাই নেই তো কার্ডের অর্ডার কী দেবে? সেই যে শুরু হলো হোয়াটস অ্যাপে নেমন্তন্ন, ব্যস সেটাই চলছে।

সিপাহি বিদ্রোহের পর নিজেকে গুটিয়ে নেওয়া গালিব দিল্লির ভাঙন দেখতে দেখতে এক দিনলিপি লিখেছিলেন। দিল্লির পতনে বিষণœ কবি বলেছিলেন, কেল্লা, চাঁদনি চক, গিরিন্দা বাজার, জুম্মা মসজিদ, প্রত্যেক সপ্তাহে যমুনার পুলে যাওয়া প্রতি বছর ফুলওয়ালাদের মেলা। এই পাঁচ-পাঁচটি জিনিসই যখন নেই, তখন বলো দিল্লি শহরটা কোথায়? নাকে রুমাল চেপে চাউড়িবাজার থেকে বের হওয়ার সময় ১৫০ বছরের পুরোনো লাইনগুলোই যেন জীবন্ত হয়ে উঠল।

 

"