কুকথা বলায় শাস্তি, কোর্টের তোপ

প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

নির্বাচনী প্রচারে কুকথা ও বিদ্বেষ ছড়ানো নিয়ে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা করেন হরপ্রীত মনসুখানি নামে এক ব্যক্তি। সুপ্রিম কোর্টের তোপের পরে পদক্ষেপ করল নির্বাচন কমিশন। চলতি নির্বাচনে এই প্রথম ‘নখদন্ত’ বার করে প্রচারে বিদ্বেষমূলক ও কুকথা বলার শাস্তি হিসেবে নেতাদের প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কমিশন। প্রচারে ধর্ম টেনে আনায় উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে তিন দিন, মায়াবতীকে দুই দিন, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মেনকা গান্ধীকে দুই দিনের শাস্তি দিয়েছেন তারা। জয়া প্রদা সম্পর্কে ‘অবমাননাকর’ মন্তব্যের জন্য এসপি নেতা আজম খানকে তিন দিনের শাস্তি দেওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসহ সর্বভারতীয় স্তরে নেতাদের ওপরে এমন নিষেধাজ্ঞা নজিরবিহীন।

নির্বাচনী প্রচারে কুকথা ও বিদ্বেষ ছড়ানো নিয়ে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা করেন হরপ্রীত মনসুখানি নামে এক ব্যক্তি। গতকাল মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে ওই মামলার শুনানি শুরু হয়। প্রধান বিচারপতি জানতে চান, কুকথা আটকানোর জন্য কমিশনের হাতে কী ক্ষমতা রয়েছে। কারণ শীর্ষ আদালতের মতে, এভাবে চোখ বুজে থাকতে পারে না কমিশন। জবাবে কমিশনের আইনজীবী জানান, এ বিষয়ে কমিশনের ক্ষমতা সীমিত। কারণ কমিশন ‘নখদন্তহীন’।

 

"